কাগজ প্রতিবেদক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে ভারত যেতে বাধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার বিকাল ৫টায় জেট এয়ারওয়েজের একটি নিয়মিত ফ্লাইটে তার ভারতে যাওয়ার কথা ছিল। গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ব্যক্তিগত সফরে দু দিনের জন্য ভারত যেতে চেয়েছিলাম। সরকারের বাধার কারণে বিমানবন্দর থেকে ফেরত আসতে হয়েছে।

বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ বলেন, ভারতের কলকাতা যাওয়ার উদ্দেশ্যে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নির্ধারিত সময়ে পৌঁছান। সবধরনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর কিছুক্ষণ বসিয়ে রেখে শেষ মুহুর্তে ‘ক্লিয়ারেন্স নেই’ বলে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে জানিয়ে দেন।

একই ফ্লাইটে ব্যবসায়িক কাজে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু যাওয়ার কথা ছিল। একই কারণে তিনিও যেতে পারেন নি।

আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেন, কোনো সময় আমাকে ক্লিয়ারেন্স দেয়া নিয়ে এ রকম হয়নি। আজ (শনিবার) একই ফ্লাইটে আমার ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের ভারতে যাওয়ার কথা ছিল। গয়েশ্বর চন্দ্র কলকাতা আর আমার হায়দ্রাবাদ যাওয়ার কথা।

তিনি বলেন, বিমানবন্দর যাওয়ার পর দুজনের একজনকেও ক্লিয়ারেন্স দেয়নি, ফ্লাইট চলে গেছে।

শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় আরেক ফ্লাইটে যাওয়ার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি ব্যবসায়িক কাজে সেখানে যাব। হায়দ্রাবাদ থেকে একটি সেমিনারে যোগ দিতে আমার শ্রীলংকায় যাওয়ার কথা রয়েছে।