আমি শ্রীপুরবাসীর ভালোবাসা হারতে পারি না: ইকবাল হোসেন সবুজ

সদরুল আইন: আমি সব কিছু হারাতে পারি শ্রীপুরের মানুষের ভালবাসা হারতে পারি না। বিভেদ নয় ঐক্য, সম্মিলত ঐক্যই কেবল পারে আ.লীগকে এগিয়ে নিতে।সম্মিলিত ঐক্যের বিকল্প কিছু নেই।

আজ গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক নতুন কমিটি গঠনকল্পে মুক্ত মঞ্চের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন গাজীপুর -৩ আসনের এমপি ও জেলা আ.লীগীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ।

তিনি বলেন, চাঁদাবাজ ভূমিদস্যূ ও মাদকমুক্ত শ্রীপুর গড়তে হলে প্রথমেই সম্মিলিত ঐক্যের প্রয়োজন।দলের মধ্যে বিভেদ রেখে দলকে এগিয়ে নেওয়া যাবে না।দলের মধ্যে ঐক্য ও শৃঙ্খলার বিকল্প কিছু নেই।

ইকবাল হোসেন সবুজ বলেন, কেউ পদ পদবি ব্যবহার করে চাঁদাবাজি করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।কেউ পদ পাইয়ে দেওয়ার অাশ্বাস দিলে বা অর্থের বিনিময় করলে সে যত বড় নেতাই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থাসহ তাকে দলের প্রাথমিক সদস্য পদও দেওয়া হবে না।

তিনি নেতা কর্মিদের উদ্দেশ্যে বলেন, নেতা হতে হলে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি মুক্ত থেকে মানুষের ভালবাসা অর্জন করতে হবে।কোন রিক্সাওয়ালাকেও তুই বলা যাবে না।তার সাথে সম্মান দিয়ে কথা বলতে হবে।আপনারা ভাল ব্যবহার করলে নিজেরা ও দল উপকৃত হবে।প্রধানমন্ত্রীর সুনাম বাড়বে।

তিনি হুশিয়ার করে দিয়ে বলেন, জাতিয়ভাবে নিজের ঘর থেকে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে। এই অভিযান গ্রাম থেকে শুরু করে প্রতিটি পর্যায় পর্যন্ত চলবে। এই অভিযানকে আমি সমর্থন করি।আপনারা কেউ চাঁদাবাজি করবেন না।মনে রাখবেন ক্ষমতা চিরদিন কারো থাকে না।

যদি কেউ অন্যায় অপকর্ম করেন তবে শেখ হাসিনার হাত থেকে কেউ রেহাই পাবেন না।মানুষের ভালবাসা অর্জনই একজন রাজনীতিবিদের প্রথম এবং প্রধান লক্ষ্য হওয়া উচিত।শ্রীপুরের উন্নয়নই অামার একমাত্র লক্ষ্য।তার জন্য অামি কাজ করে যাচ্ছি।

প্রথম পর্বের অনুষ্ঠানে জেলা থানা স্থানীয় আ.লীগের নেতাদের দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্যের পর থানা আ.লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. সামসুল আলম প্রধান মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করেন।

বিকেল ৪ টা থেকে দ্বিতীয় পর্বের অনুষ্ঠান শুরু হয় বরমী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে। এখানে জেলা ও থানা আ.লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা বরমী ইউনিয়নের সকল পর্যায়ের নেতাদের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে মিলিত হন। সভাপতি পদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা গোলাম মোসরতফা সরকার,আশরাফুল আলম,আলী আমজাদ পন্ডিত,আ: খালেক,অ: সামাদ শেখ এবং সাধারন সম্পদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিকারি হারুন অর রশীদ খন্দকার,আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বল,শাহাদ উল্লাহ এবং জাহাঙ্গীর অালমসহ সকল নেতৃবৃন্দ লিখিতভাবে জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দকে সভাপতি সাধারন সম্পাদক নির্বাচনের দায়িত্ব দেন।

জেলা নেতৃবৃন্দ দীর্ঘ আলাপ আলোচনা শেষে আলী আমজাদ পন্ডিতকে সভাপতি এবং হারুন অর রশীদ খন্দকারকে সাধারন সম্পাদক করে বরমী ইউনিয়ন আ.লীগের নতুন কমিটি ঘোষনা দেন থানা আ.লীগের সভাপতি এ্যাড সামসুল আলম প্রধান।কমিটির বাকি সদস্যদের বিভিন্ন পদ এক মাসের মধ্যে পূরণ করা হবে বলে জানা গেছে।