বাংলাদেশ প্রতিবেদক: হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে তার স্ত্রীর দায়ের করা ধর্ষণ মামলায় দুইজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালতের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক নাজমুল হক শ্যামলের আদলতে সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

সাক্ষীরা হলেন- জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহাগ রনি ও সোনারগাঁয়ের বাসিন্দা রতন মিয়া। এ নিয়ে সর্বমোট ১১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হলো।

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় কাশিমপুর কারাগার থেকে মাওলানা মামুনুল হককে নারায়ণগঞ্জ আদালতে আনা হয়।

আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রকিব উদ্দিন আহমেদ এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

আসামি পক্ষের আইনজীবী এ কে এম ওমর ফারুক নয়ন বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক নাজমুল হক শ্যামলের আদলতে দুইজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি জানান, মূলত চারজনের সাক্ষ্য গ্রহণের কথা থাকলেও চার্জশিটের ১১, ১২ ও ১৩নং সাক্ষী উপস্থিত ছিলেন। তবে আদালত ছাত্রলীগের সাবেক জেলা সহ-সভাপতি সোহাগ রানী ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা রতন মিয়ার সাক্ষ্য গ্রহণ করেছে। অপর সাক্ষী পারভেজের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়নি।

কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মাওলানা মামুনুল হককে নারায়ণগঞ্জ কোর্টে আনা হয়। পরে দুপুর ১টায় মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ কার্যক্রমের জন্য তাকে আদালতে তোলা হয়। দুপুর ২টায় সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে তাকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ রয়েল রিসোর্টে এক নারীর (২য় স্ত্রী দাবি করা) সাথে অবস্থান করা অবস্থায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাকে ঘেরাও করে। পরে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পরে ৩০ এপ্রিল সোনারগাঁ থানায় মামুনুল হকের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ মামলা করেন তার সাথে থাকা ওই নারী। কিন্তু মাওলানা মামুনুল হক দাবি করেন- ওই নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী।

Previous articleগ্রিসে বিধ্বস্ত বিমানে সেনাবাহিনী ও বিজিবির জন্য কেনা মর্টার শেল ছিল: আইএসপিআর
Next article৬ মাসেই কুরআনের হাফেজা ৮ বছরের আবিদা সুলতানা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।