বুধবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২৩
Homeরাজনীতিনির্বাচনে কে অংশ নিল, না নিল সেটি বড় ব্যাপার নয়: আইনমন্ত্রী

নির্বাচনে কে অংশ নিল, না নিল সেটি বড় ব্যাপার নয়: আইনমন্ত্রী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নির্বাচনে কে অংশ নিল, না নিল সেটি বড় ব্যাপার নয় মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেছেন, জনগণ যদি ভোট দেয় সেটাই গ্রহণযোগ্য।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তপশিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। ঘোষিত তপশিল অনুযায়ী, আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে। সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে আন্দোলনে থাকা রাজপথের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি ঘোষণা দিয়েছে, তারা নির্বাচনে অংশ নেবে না।

এমন অবস্থায় সরকারের অবস্থান কী- জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, জাতির পিতা আমাদের সংবিধান দিয়েছেন। আমরা সংবিধান অনুযায়ী চলব। সংবিধানের বাইরে আমরা কিছুই করব না। কারণ, জনগণ আমাদের সেই ম্যান্ডেট দেয়নি।

বিএনপির মতো বড় দল অংশ না নিলে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচন হচ্ছে জনগণ যদি ভোট দেয়। তাতে কে এল, কে না এল…কোন রাজনৈতিক দল এল, কোন রাজনৈতিক দল এল না, সেটা বড় ব্যাপার না। জনগণ যদি ভোট দেয় সেটাই গ্রহণযোগ্য। কারণ, জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস।

২০০৬ সালে বিএনপি সংবিধান মেনে চলার কথা বলেছিল। আপনারা (আওয়ামী লীগ) যৌক্তিক দাবির কথা বলেছিলেন, এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ব্যাপারটা হচ্ছে, এই সংবিধানটা নিয়ে ফুটবল খেলে ওনারা (বিএনপি) ওনাদের ইচ্ছামতো একজন বিচারপতির বয়স বাড়িয়ে তিনি যেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা হতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করেছিলেন। এটা জনগণ মানেনি। সেটা জনগণ না মানার কারণেই কিন্তু একটা তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে আসতে হয়েছে। যদিও তখন তিন মাস থাকার সুযোগ ছিল। কিন্তু তারা দুই বছর ছিল।

তপশিল ঘোষণার পর সরকার নীতি-নির্ধারণী কাজ, আইন প্রণয়ন করবে কি-না জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, আইন তো হবেই না। কারণ সংসদ বসবে না। কিন্তু এমন কথা আমি বলতে পারি না…এটা একটা স্বাধীন দেশ। যদি প্রয়োজন হয় অর্থাৎ অধ্যাদেশ দিয়ে আইন জারি করতে হবে। কোনো বিশেষ প্রয়োজনে, অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কোনো পরিস্থিতিতে আইন হবে না এমন কথা তো আমি বলতে পারি না।

সরকার এখন রুটিন কাজ করবে জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, রুটিন কাজ হচ্ছে গতানুগতিক অফিস চলার জন্য যে কাজ। স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার বেতন পাওয়ার বিষয়, দৈনন্দিন কার্যক্রম- এসব কাজ বর্তমান সরকার করবে। উন্নয়ন কাজ যেগুলো আছে সেগুলো চলমান থাকবে। তবে নতুন করে কোনো উন্নয়ন কাজ শুরু হবে না। নতুন করে কোনো প্রকল্প নেওয়া হবে না।

মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীরা থাকবেন কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেই সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রীর।

এখন পুলিশের কার্যক্রম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হবে নাকি নির্বাচন কমিশনের অধীনে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যদি পুলিশের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের কোনো বক্তব্য থাকে, সেটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্বাচন কমিশন জানাবে এবং যেটা (ইসি) বলছে, সেটা যদি যৌক্তিক হয় তাহলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেই ব্যবস্থা নেবে।

নির্বাচন কমিশন কোনো পুলিশ কর্মকর্তাকে সরিয়ে দিতে বললে, সেই বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভাবার অবকাশ আছে কি-না, এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সব কিছুই আইনের আওতায় বলতে হবে।

বদলি বা পদোন্নতি নির্বাচন কমিশনের অধীনে হবে কি-না, জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, সেটা নির্বাচন কমিশন নেবেন কি-না, সেটা নির্বাচন কমিশনের ব্যাপার। এটা তো আমি বলে দিতে পারব না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments