ক্যাসিনো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, নিকট ভবিষ্যতে ক্যাসিনো হবে না: র‍্যাবের ডিজি

হুমায়ুন কবির: বিভিন্ন ধরনের হাইব তুলে, গুজব ছড়িয়ে, গসিপ ছড়িয়ে কিংবা যার যার চিন্তাশীল মস্তিস্কর প্রসুত ধারণা প্রচার করে অনগোয়িং যে অপারেশন আছে তা ভন্ডুল না করে দেয়াটাই বেটার হবে।

আমার দেশে কিন্তু অনেক ভালো উদ্যোগকে পথিমধ্যে ভন্ডুল হতে দেখি। এর কারণ হচ্ছে যে এই সমস্থ অপপ্রয়াস বলেলেন র‍্যারের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ।

শনিবার(২৮ সেপ্টেবর) বিকালে নেত্রকোনা মোক্তারপাড়া পাবলিক হল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জঙ্গী, সন্ত্রাস ও মাদক বিরোধী সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদানের পূর্বে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, এতো বড় একটা প্রজেক্টের কথা আপনারা বলছেন, আমরা কিন্তু কাজ করছিলাম ক্যাসিনো বন্ধ করা নিয়ে।

তো আপনারা এত বড় বড় প্রজেক্ট কোথায় পেলেন ? সরকার যখন যেইটা সিদ্ধান্ত নেবে আমরা পর্যায়ক্রমে সেগুলো বাস্তবায়ন করবো।

আর আমি মনে করি যে, যার মাথায় যা আছে সবকিছু একপাত্রে ঢেলে দিয়ে এই ধরেনের কোন উদ্যোগকে পথিমধ্যে যে নস্যাৎ করে ফেলি এটা বোধহয় ঠিক না। আমরা মূলত ক্যাসিনো বন্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছি।

আপনাদেরকে বলতে পারি সমস্থ ক্যাসিনো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমি বলতে পারি যে নিকট ভবিষ্যতে এই ধরনের ক্যাসিনো বা এমন কিছু হবে না।

আমি কেন বললাম নিকট ভবিষ্যত ? সেটা হচ্ছে যে ভবিষ্যতের পলিসি কি হবে সেটা সরকার নির্ধারণ করবে। সেই পলিসির কথা তো আমি এই মূহুর্তে বলতে পারবো না।

কারণ বাংলাদেশ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের সংবিধানে বলা আছে যে জুয়া খেলা নিষিদ্ধ বা ডিসচার্স করা হয়েছে। অগ্রগতি বা উন্নতির যে ধাপে এই মূহুর্তে আমরা অবস্থান করছি তার পরিপ্রেক্ষিতে ভবিষ্যৎ কি পলিসি হতে পারে তা এই মূহুর্তে অনুমান না করাটাই বেটার হবে। আমরা বর্তমানে থাকতে চাই ভবিষ্যতকে মনে রেখে।
বর্তমানটা হচ্ছে কি ? আমারা ক্যাসিনোগুলোকে বন্ধ করতে চাই। কারণ এগুলো আমাদের বিদ্যমান সাংবিধানিক যে বিধান রয়েছে যে আইন রয়েছে সেগুলোর সাথে সংগতিপূর্ন নয়। এগুলো বেআইনি। বাংলাদেশের কাউকে ক্যাসিনো পরিচালনা করতে দেয়া হয় নাই।

সে কারনে এই বেআইনি কার্যক্রমকে বন্ধ করতে আমাদের অপারেশনটা চালু করা হয়েছে।

এখন অসমাপ্ত কাজ যেটা রয়েছে সেটাকে টেনে নিয়ে আসা। সমাপ্ত করা। আমি মনে করি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নেতর্ৃত্বে সকল রাষ্ট্রের কর্মচারী যার যে দ্বায়িত্ব সে বদ্ধ পরিকর। সেটা আমরা প্রতিপালন করবো।
আমি আবারও বলবো এই ক্যাসিনো বিরোধী কার্যক্রমকে কেন্দ্র করে আতংক ছড়ানো দরকার নাই, গুজব ছড়ানো দরকার নাই, গসিপ করার দরকার নাই, চরিত্র হনন করা দরকার নাই। এখন যখন ইনভেস্টিগেশন ছাড়া কারো ছবি ছেপে দেয়া হয় তখন তার পরিবারের কি দাঁড়ায়, তার সামাজিক অবস্থান কি দাঁড়ায়? কারো সম্পর্কে যখন কুৎসা রটনা করা হয় তখন সেই পরিবারের অবস্থা কেমন হয়।

যেটা আপনি ফেরত দিতে পারবেন না সেটা আপনি নেবেন কেন? আপনি যদি কাউকে সামজিক ভাবে পারিবারিকভাবে অপদস্থ করেন এতে তার যে ক্ষতি হবে সেটাকি আপনি ফেরত দিতে পারবেন ? না পারলে কেড়ে নেবেন কেনো?

আমাদের বোধহয় এখানে বিবেকের এবং বিবেচনার সবোর্চ্চ প্রয়োগের বিষয় আছে। আমরা দেশবাসী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশটাকে সামনে এগিয়ে নিয়োর জন্য যা যা করনীয় দরকার করবো।

পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পুলিশ এসোসিয়শনের সম্পাদক প্রলয় জোয়ারদার, অধ্যাপক যতীন সরকার, ময়মনসিংহ রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি আক্কাস উদ্দিন ভূইয়া, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জিয়া আহমেদ সুমনসহ অন্যরা।