ফাইজুল,জান্নাতুল এবং মোহাইমিনুল

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে চাকরির ক্ষেত্রে তরুণ-তরুণীদের প্রথম পছন্দ বিসিএস। সম্মান, চাকরির নিশ্চয়তা, পরিবার ও সমাজের চাওয়া ইত্যাদি কারণে তারা ঝুঁকছেন দেশের প্রথম শ্রেণির এই চাকরির দিকে। প্রতিবছরই বাড়ছে বিসিএস পরীক্ষার্থীর সংখ্যা। যখনই কোনো বিসিএসের ফল প্রকাশ করা হয়, তখনই কার বিসিএস হয়েছে,কে কোন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছে তা নিয়ে চলে নানা আলোচনা। আলোচনার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে থাকেন বিভিন্ন ক্যাডারে প্রথম হন যারা। এরই মধ্যে গত বুধবার প্রকাশিত হয়েছে ৪০তম বিসিএসের ফল। এর পরপরই শুরু হয়েছে আলোচনা।

সাধারণত প্রশাসন, পুলিশ ও পররাষ্ট্র ক্যাডারের কথা জানতে আগ্রহ থাকে বেশি। এবার এই তিনটি ক্যাডারে প্রথম হয়েছেন যথাক্রমে জান্নাতুল ফেরদৌস, কাজী ফাইজুল করীম ও মোহাইমিনুল ইসলাম। তিনজনেরই এটি প্রথম বিসিএস এবং সবাই প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করেছেন। জান্নাতুল, ফাইজুল ও মোহাইমিনুলের মধ্যে আরও মিল হলো, তিনজনই তাদের পছন্দের ক্যাডার পেয়েছেন।

তাদের মধ্যে জান্নাত এবং ফাইজুল পাস করেছেন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর মোহাইমিনুল পাস করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে। জান্নাত মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফাইজুল ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ও মোহাইমিনুল পানিসম্পদ প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন।

চাকরির ভাইভায় জানলেন প্রশাসনে প্রথম হওয়ার খবর

বিসিএসের ফল নিয়ে উৎকণ্ঠায় ছিলেন জান্নাত। সেই উৎকণ্ঠা নিয়েই গিয়েছিলেন একটি সরকারি ব্যাংকে সিনিয়র অফিসার পদে ভাইভা দিতে। এর মধ্যে তার স্বামী তাকে জানালেন তিনি বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে প্রথম হয়েছেন।

জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, বিশ্বাসই হচ্ছিল না! স্বামীকে রোল ও রেজাল্ট শিটের নম্বর এক কি না, মেলাতে বলি। নিশ্চিত হয়ে কল দিলে তবেই বিশ্বাস করি। জান্নাতুল বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএতে এমবিএ করছেন। কুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ২০১২-১৩ সেশনের শিক্ষার্থী ছিলেন। জান্নাতুল বলেন, মা–বাবা ও স্বামী সব সময় অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, ত্যাগ স্বীকার ও কষ্ট করেছেন।

জান্নাতুল ফেরদৌসের বাবা বি এম সবুর উদ্দিন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক উপমহাব্যবস্থাপক। মা সামসুন্নাহার গৃহিণী। ঢাকার দনিয়ার এ কে হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে মাধ্যমিক আর উচ্চমাধ্যমিক দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে পাস করেন।

পুলিশ হওয়ার স্বপ্ন ছিলো ফাইজুলের

ইচ্ছা ছিল বিসিএস ক্যাডার হওয়ার। আর সেখানে প্রথম বিসিএসে তাই পছন্দের দিক থেকে ১ নম্বর চয়েস দিয়েছিলেন পুলিশ ক্যাডার। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবে ধরা দিল কাজী ফাইজুল করীমের।

ফাইজুল প্রতিদিনের মতো বুধবারও তার কর্মস্থল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ছিলেন। স্ত্রী সুরাইয়া তামান্নাও সেখানে চাকরি করেন। স্ত্রী তাকে জানান, তিনি পুলিশ ক্যাডারে প্রথম হয়েছেন। এরপর নিজে যাচাই করে নিশ্চিত হন। ফাইজুল বলেন, ‘প্রথম বিসিএসে প্রথম পছন্দের ক্যাডার ছিল পুলিশ। সেটি পেয়ে গেছি। আর কোনো বিসিএসে অংশ নেব না।’

ফাইজুলের বাড়ি কুমিল্লায়। তিনি কুমিল্লা জিলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেছেন। বাবা আফতাব উদ্দিন ব্যবসায়ী। মা কাজী মীর জাহান বেগম অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা।

পররাষ্ট্রে প্রথম হবেন, ভাবেননি মোহাইমিনুল

পড়াশোনা শেষে একটা বিসিএস দেওয়ার ইচ্ছা ছিল বুয়েটের মোহাইমিনুলের। ৪০তম বিসিএস টার্গেট করলেন তিনি। প্রথমে প্রিলিমিনারি ও পরে লিখিত পরীক্ষা দিলেন। ভাইভার প্রস্তুতি চলা অবস্থায় একটি বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠানে চাকরি নিলেন।

ভাইভা দিয়ে বুঝলেন, প্রথম পছন্দ পররাষ্ট্র ক্যাডারে হতে পারে তার। তবে প্রথম হবেন, এটা ভাবেননি। ফল প্রকাশের দিন অফিসের কাজে ছিলেন সাতক্ষীরার তালা উপজেলায়। ফল প্রকাশের পর দুর্বল ইন্টারনেটেও অনেকবার চেষ্টা করে ফলের পিডিএফ ডাউনলোড করে দেখলেন পররাষ্ট্রে প্রথম হয়েছেন।

মোহাইমিনুল বলছিলেন, ‘যেভাবে লক্ষ্য ঠিক করেছি, সেভাবেই সব হয়েছে। নিজেকে প্রথম দেখার আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। এমন চাকরি করতে চেয়েছি, যার মাধ্যমে দেশের সেবা করা যায়। সেটি এখন সম্ভব হবে।’ মোহাইমিনুল শেরেবাংলা নগর সরকারি বালক স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও নটর ডেম কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিকের পর ২০১২-১৩ সেশনে বুয়েটে ভর্তি হন। বাবা মোসলেম উদ্দিন আহমেদ জনতা ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আর মা আল্পনা বেগম গৃহিণী। গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে হলেও বেড়ে উঠেছেন ঢাকায়। বর্তমানে ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং নামে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন।

Previous articleমিঠাপুকুরে ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ব্রিজে ফাটল
Next articleইমরানের বুদ্ধি ছাড়া সবই আছে: সাবেক স্ত্রী রেহাম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।