জয়নাল আবেদীন: রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলায় প্রায় ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন একটি ব্রিজে ফাটল দেখা দিয়েছে। এলাবাসী অভিযোগ করেছেন একদিকে কাজের তদারকি না থাকা এবং অন্যদিকে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ঘটনাটি ঘটেছে। এদিকে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও স্থানীয় প্রকৌশল দপ্তর বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে ।

মিঠাপুকুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানজাকির হোসেন, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রেজাউল ঘশ সহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ইতোমধ্যেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন । ব্রিজটির পাশে এক্সক্যাভেটর দিয়ে মাটি দেওয়ার সময় ফাটল দেখা দিতে পারে মনে করছেন উপজেলা প্রকৌশলী। জানা গেছে উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের মিলনবাজার এলাকায় এ বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি ব্রিজ নির্মাণের কাজ শেষ হওয়ার চুক্তিতে নির্মান কাজ শুরু কওে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার । প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ১৯ লাখ ৯৩ হাজার টাকা। ব্রিজটি ৬ দশমিক ৯ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৪ দশমিক ৮৮ মিটার প্রস্থ । ১৭ ফেব্রুয়ারি কাজ শেষ করার কথা থাকলেও এপ্রিলেও তা শেষ হয়নি । লালমনিরহাটের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ফাতেমা ট্রেডার্স এই ব্রিজটির নির্মাণ কাজ করছে।

খোড়াগাছ ইউনিয়নের পদাগঞ্জ ও পাইকারের হাট হয়ে মিলনবাজার পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার কাঁচারাস্তা। ১৫ থেকে ২০ গ্রামের মানুষ রংপুর সদর উপজেলায় যাতায়াত করতে রাস্তাটি ব্যবহার করে থাকেন। রাস্তাটির তিনমাথা পাইকড়ের তল এলাকায় ওই ব্রিজটি নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে ফাটল। এলাকার লোকজন অভিযোগ করেছেন ব্রিজের ফাটল ঢাকতে রাতের আধারে সিমেন্ট দিয়ে প্রলেপ দিয়েছেন ঠিকাদারের লোকজন। তারপরও কয়েকটি স্থানে ফাটল দেখা যাচ্ছে । সেখানকার বায়ান্নবাজারের মোজাহার আলী বলেন, ব্রিজটি নির্মাণ করতে ঠিকাদার নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করেছেন। দিনের বেলা কাজ না করে রাতের বেলা কাজ করছে। এখন তারা ব্রিজের ফাটল ঢাকতে চেষ্টা করছে। কিন্তু নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রীর ব্যবহারের কারণে ফাটল দেখা দিয়েছে। ভবিষ্যতে ব্রিজটি ব্যবহার করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবে। আমরা চাই ফাটল দেখা দেওয়া ব্রিজটি ভেঙে নতুন করে নির্মাণ করা হোক।

খোড়াগাছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এলাকাবাসীর অভিযোগের সাথে আমিও একমত। নিম্নমানের সামগ্রীর ব্যবহারের কারণে ফাটল দেখা দিয়েছে কি না বিষয়টি তদন্ত করা উচিত। আমি উপজেলা প্রকৌশলীসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য অনুরোধ করেছি। নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ অস্বীকার করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ফাতেমা ট্রেডার্সের স্বত্ত্ধসঢ়;বাধিকারী মিজানুর রহমান মিজান বলেন, নির্মাণবিধি মেনেই কাজ হচ্ছে। এ বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিছু কারণে শেষ হয়নি। আর ফাটল দেখা দেওয়ার বিষয়টি সাময়িক সমস্যা। উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে দেখা কথা বলেছি। তিনিই সব কিছু দেখবেন।

এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রেজাউল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাউকে না জানিয়ে নিজের্ধাসঢ়;ই ঢালাই কাজ করেছেন যা আমাদেও লোকজন গিয়ে সেটি ভেঙ্গে দিয়েছে । আমরা বিষয়টি তদারকি করছি। পরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এটা তেমন গুরুতর বা ঝুঁকিপূর্ণ নয়। তারপরও আমরা সবকিছু দেখেই ব্যবস্থা নেব।

Previous articleরংপুরে ১২০ টাকায় পুলিশে চাকরি পেলেন ৮০ জন
Next articleপ্রথমবারেই ‘স্বপ্ন’ দিলো ধরা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।