সদরুল আইন: উঠান বৈঠকের অনন্য রুপকার গাজীপুর জেলা আ’লীগের নন্দিত সাধারন সম্পাদক মা মাটি মানুষের অতি কাছে পৌছে যেয়ে৩০ বছর পর ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছেন মনোনয়নের কাঙ্খিত সোনার হরিণ।

৭৮০ টি উঠান বৈঠক আর অনেক বছরের রাত জেগে মানুষের সমস্যা সমাধান করা এই অনন্য ব্যক্তিত্ব জেলা অ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে হতে পেরেছিলেন সাধারন সম্পাদকে। এরপর অবিরাম উঠান বৈঠকের মাধ্যমে তিনি সর্বকালের জনপ্রিয়তার শিখর স্পর্শ করে তার রাজনৈতিক জীবনের চরম প্রাপ্তি একাদশ সংসদ নির্বাচনে গাজীপুর -৩ আসনের মনোনয়ন ছিনিয়ে আনেন প্রতিপক্ষের অনেক নাটকীয়তাকে পিছনে ফেলে।

ইকবাল হোসেন সবুজের মনোনয়নের মধ্য দিয়ে ৩০ বছরের অত্যাচার নির্যাত আর চরম জুলুমবাজদের মসনদ খসে পড়ে রাজনীতির ডাস্টবিনে।

অগনীত মানুষের দীর্ঘ বিনিদ্র প্রার্থনা, নফল রোজা, মানত, পবিত্র কাবা তওয়াফের ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে সদা হাস্যমান প্রিয়ংবদা স্বপ্নপূরুষ সবুজ তার মনোনয়ন প্রাপ্তার মধ্য দিয়ে শ্রীপুরের রাজনীতির আকাশে নতুন ভোরের সূচনা ঘটাতে সক্ষম হন।

১০ ডিসেম্বরের প্রতীক বরাদ্দের আগে উঠান বৈঠক এবং তৎপরবর্তি দিন রাতের অবিরাম পথসভার মধ্য দিয়ে তিনি নির্বাচনী মাঠে একক আধিপত্তের দাপট বজায় রেখে চলেছেন। তার প্রতিপক্ষ গণফোরাম নেতা ঐক্যফ্রন্টের ইকবাল সিদ্দিকী।যার বাড়ি টাঙ্গাইল। তিনি বহিরাগত হওয়ায় এই আসনের ভোটারদের কাছে তিনি বা তার নাম সম্পূর্ণ অপরিচিত।কোন পোষ্টার প্রচার প্রচারণায় এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি তাকে।

এই আসনের কোন ভোটারের কাছে তিনি পরিচিত নন।অপরদিকে স্থানীয় বিএনপি’র মধ্যে কাউকে মনোনয়ন না দেওয়ায় চরম ক্ষোভ রয়েছে। ফলে বিএনপি বা অস্তিত্বহীন ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থির প্রার্থিতা এই আসনে শুধুই খাতাপত্রে মাত্র।

এদিকে ইকবাল হোসেন সবুজ এই আসনের সন্তান।তিনি ভাওয়াল কলেজের সাবেক ভিপি এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালে তার পরিচ্ছন্ন ইমেজ, পরিচিতি, বিপুল জনপ্রিয়তা পূর্বেই ছিল।উঠান বৈঠক, জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক হওয়া, এবং সাধারন মানুষের কাছাকাছি থাকায় তার হিমালয়সম জনপ্রিয়তার জোয়ারে বহিরাগত ইকবাল সিদ্দকীর ধার করা ধানের শীষ ঝরেই শুধু যায়নি অস্তিত্ব সংকটে মুখ থুবড়ে পড়েছে।

সবুজের প্রতিটি পথসভা পরিনত হচ্ছে জনসমুদ্রে। একপেশে, প্রতিদ্বন্দ্বিহীন বিপুল একক ভোটের গর্বিত এমপি হয়ে তিনি একাদশ সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে রেকর্ড সংখ্যক ভোটের স্বত্ত্বাধিকারী হয়ে মহান পবিত্র সংসদ আলোকিত করতে যাচ্ছেন তা বলাই বাহুল্য।