সদরুল আইন: রাজধানীর রমনা, নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি, ঠাকুরগাঁও সদর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থাকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এ ছাড়াও গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা সেবাষ্টিন রেমা ও ফরিদপুরের এডিসি সাইফুল হাসানকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছে ইসি।

বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে একটি চিঠি পাঠায় নির্বাচন কমিশন।

বুধবার নির্বাচন কমিশন এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা কার্যকর করতে মহাপুলিশ পরিদর্শক ড. জাবেদ পাটোয়ারিকে চিঠি পাঠিয়েছে।

ইসির সহকারী সচিব নূর নাহার স্বারিত একটি চিঠি বুধবার পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে কমিশন সূত্রে।

যেসব থানার ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তারা হলেন, ঢাকার রমনা থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম, নোয়াখালী সোনাইমুড়ী থানার ওসি আবদুল মজিদ, ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার ওসি কবির হোসেন।

নির্বাচন কমিশনের সংস্থাপান শাখার উপসচিব সাবেদ উর রহমান বলেন, ‘সেবাস্টিন রেমার বিরুদ্ধে কাজে সক্রিয় না থাকার অভিযোগ ছিল।

আর এডিসি (ফরিদপুর) সাইফুল হাসানের বাবা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী, মির্জা ফখরুলের ওপর হামলার ঘটনায় ঠাকুরগাঁয়ের ওসি মোস্তাফিজুর রহমান, মির্জা আব্বাসের ওপর হামলার ঘটনায় রমনার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম, মাহবুব উদ্দীন খোকনের ওপর হামলার ঘটনায় সোনাইমুড়ি থানার ওসি আব্দুল মজিব এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার ওসি কবির হোসেনকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

‘সেবাস্টিন রেমা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছিলেন। তাকে এবং এডিসি সাইফুল হাসানকে প্রত্যাহার করে উপযুক্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়ার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে এবং ওসিদের প্রত্যাহার করে উপযুক্ত কর্মকর্তা পদায়ন করার জন্য মহা পুলিশ পরিদর্শকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

এর আগে বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে গিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে সাাৎ করেন নোয়াখালী-১ (চটাখিল-সোনাইমুড়ীর একাংশ) আসনে বিএনপি প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।

তিনি নির্বাচন কমিশনে (ইসি) গিয়ে তার ওপর হামলার ঘটনা বর্ণনা করেন । পরে মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি প্রার্থীদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার জন্যও সিইসিকে বলেছি। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা করেছে।

কমিশনের দায়িত্ব প্রার্থীদের নিরাপত্তা দেওয়া, সকল ভোটাররা তাদের ইচ্ছামত ভোট দিতে পারেন—সেই জন্য ভোটারদের নিরাপত্তা দেওয়া। আমি সোনাইমুড়ী থানার ওসির প্রত্যাহার চেয়েছি।

চাটখিল থানার ওসির বিষয়েও তদন্ত করে তার প্রত্যাহার চেয়েছি। এগুলো তিনি শুনেছেন। আমাকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, আমরা নিরপেক্ষ নির্বাচন করার চেষ্টা করছি।’