হিজল গাছের কারিশমা!! ছোড়া হয় মাটির ঢিল, ঝুলানো হয় মাছ!

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় একটি হিজল গাছ আশাপূরণে আর মঙ্গলের প্রতিক হয়েছে। যুগের পর যুগে ধরে গাছটি ঘিরে মনের বিশ্বাসে অনেক কিছুই করা হয়। গাছটির কাছে আশা পুরণে মানত করা হয়। ছোড়া হয় মাটির ঢিল। ডালে ঝুলানো হয় মাছ। বেধে দেয়া হয় টুকরো কাপড়। উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চান্ডালগাঁতী সড়কের পাশে হিজল গাছটির অবস্থান। স্থানীয়দের কাছে এটি হেচুল গাছ নামে পরিচিত পেয়েছে। প্রায় ২৫ ফুট উচ্চতার গাছটিতে বেশ কিছু সংখ্যক ডালপালা আছে। এলাকার প্রবীন ব্যক্তিদের ভাষ্য তারা ছোট বেলা থেকেই গাছটিকে আজকের অবস্থায় দেখে আসছে। তাদের পূর্ব পুরুষেরা নাকি এভাবেই দেখেছে। চান্ডালগাঁতী গ্রামে মোনজের প্রামানিক (৬৯), নুরাল প্রামানিক (৬৮) ও বিনায়েকপুর গ্রামের প্রায় ৭০ বছর বয়সী মজলার রহমান জানান, গাছটি এখন যেমন অবস্থায় অর্থ্যাৎ আকার ও ডালপালা তারা ছোট বেলা থেকেই এমন অবস্থায় দেখে আসছে। কোন পরিবর্তন হয়নি। তাদের পূর্ব পুরুষেরা এমন অবস্থায় দেখেছে বলে তারা জানিয়েছে। প্রায় ৮০ বছর বয়সী রহিচা খাতুন জানান, তিনি বিবাহিত জীবনে প্রায় ৬৫ বছর কাল ধরেই একই অবস্থায় দেখে আসছি। তার শ্বশুর সোলে মন্ডল ও মামা শ্বশুর রহমানের মুখেও শুনেছেন তারাও একই অবস্থায় দেখেছেন। স্থানীয়রা জানান, এলাকার বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার লোকজন তাদের মনের আশা পুরণে গাছতলায় এশে নানা ধরনের মানত করে থাকে। এরা আশা পূরণের আগে ও পরে মানতের সব গাছটির গোড়ায় রেখে যান। এলাকার মৎস্যজীবিরা মাছ শিকারের আগে এক-দুটি মাছ গাছের ডালে ঝুলিয়ে রেখে যান। অনেকেই ব্যবসা বানিজ্য বেরিয়ে গাছটিতে ছুয়ে যান। এছাড়া চলার পথে অমঙ্গল যেন না হয় এমনটি ভেবে মাটির ঢিল ছোড়া হয়। এদিকে গাছটির বয়স নিয়ে এলাকার কেউই সঠিক হিসাব জানাতে পারেননি। উপজেলা কৃষি বিভাগের উপসহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা মোঃ আজমল হক জানান এটি পুরোপুর কুসংস্কার। আগের বেশির ভাগ মানুস অশিক্ষিত ছিল। তারা কুসংস্কারে বিশ্বাস করত। সেই ধারাবাহিকতা এখনো চলছে।