উপজেলা নির্বাচন শ্রীপুর: জনমত জরিপে মাহতাব, কেন্দ্রে জলিল এগিয়ে

সদরুল আইন: দেশের অন্যান্য উপজেলার মত গাজীপুরের শ্রীপুরের উপজেলাতেও বইছে নির্বাচনী আমেজ।ব্যানার পোস্টার ফেস্টুন জনসংযোগ আর ব্যক্তিগত প্রচারণায় মুখর এখন শিল্প শহর শ্রীপুরের উপজেলা পরিষদের ভোটার এলাকাটি।

এ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন আ’লীগের হয়ে ভোটযুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য ৯ জন প্রার্থির নাম আলোচনায় এসেছে।তবে কেন্দ্রিয় নির্দেশে জেলা আ’লীগ কোন ৩ জন প্রার্থির নাম কেন্দ্রে প্রেরণ করেছে তা এখনো কঠোর গোপনীয়তার মোড়কে ঢেকে রাখা হয়েছে।

এক সময় গাজীপুর জেলায় আ’লীগের রাজনীতিতে দুটি ধারা বিদ্যমান ছিল।মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও জেলা আ’লীগের সভাপতি আ,ক,ম, মোজাম্মেল হক এবং সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজের নেতৃত্বাধীন বলয়ে মূলত এই জেলায় আ’লীগের রাজনীতি পরিচালিত হত।অপরপক্ষে গাজীপুর-৩ আসনের সাংসদ এ্যাড রহমত আলীর নেতৃত্বে ছিল অন্য পক্ষ।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে বয়োবৃদ্ধ এই সাংসদ মনোনয়ন না চাওয়ায় এবং তার পুত্র জামিল হাসান দুর্জয় মনোনয়ন পেতে ব্যর্থ হওয়ায় অবসান ঘটে রহমত আলী অধ্যায়ের।কিন্তু শ্রীপুর উপজেলা যা গাজীপুর-৩ আসন হিসেবে পরিচিত এখানে রয়েছে তার শক্ত ভীত।যদিও গত সংসদ নির্বাচনে ৩০ বছর পর বহু সংগ্রাম সাধনার পর এই আসনে প্রার্থি পরিবর্তন করে মনোনয়ন দেয় ইকবাল হোসেন সবুজকে।তিনি রেকর্ড সংখ্যক ভোট পেয়ে বর্তমানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

ইকবাল হোসেন সবুজ যখন শ্রীপুরের উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন তখন রহমত আলী ভবিষ্যতে তার পুত্র দুর্জয় যাতে নমিনেশন পেয়ে এমপি নির্বাচিত হতে পারেন সে ধারনাটি মাথায় রেখে প্রতিপক্ষ সবুজকে সরিয়ে দিয়ে আলামিন হত্যাকান্ডের নাটক সাজিয়ে সবুজ, পৌর মেয়র আনিছুর রহমান, আশরাফুল ইসলাম ওয়াসিমসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে রাজনীতির মাঠ একক নিয়ন্ত্রনে রাখতে অপচেষ্টা চালান।তারই ফলশ্রুতিতে গত উপজেলা নির্বাচনে বর্তমান সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজের মনোনয়ন প্রত্যাহার করায়ে তদানিন্তন ইউপি চেয়ারম্যান অাব্দুল জলিলকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে সমর্থন দিয়ে নির্বাচিত করান।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে রহমত আলী অধ্যায়ের অবসানের মধ্য দিয়ে এই উপজেলায় রাজনৈতিক যে পট পরিবর্তন ঘটেছে তারই ধারাবাহিকতায় আব্দুল জলিল বিপক্ষ শক্তির ধারক হওয়ায় তার জেলা আ’লীগের সমর্থন পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ।তবে কেন্দ্রিয় লবিং মজবুত থাকায় তার মনোনয়ন পাোয়ার যথেষ্ট সম্ভবণা অাছে বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারনা।

অন্যদিকে থানা আ’লীগের সভাপতি শামসুল আলম প্রধান, জেলা পরিষদ সদস্য আবুল খায়ের বিএসসি, পৌরপিতা আনিছুর রহমানের শ্যালক অাব্দুর রউফ, জেলা কমিটির সদস্য মাহতাব উদ্দিন, হূমায়ূন কবির হিমু উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রচারে রয়েছেন।

বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল জলিলের কেন্দ্রিয় লবিং মজবুত থাকলেও রহমত আলী অধ্যায়ের অবসানের কারনে তিনি মনোনয়ন পেলে নির্বাচনী বৈতরনী পার হওয়া সহজ হবে না।তিনি প্রার্থি হলে সবুজ সমর্থক কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থি হলে আব্দুল জলিল মহাসংকটে পড়বেন।

জানা গেছে, আব্দুল জলিলের কেন্দ্রিয় লবিং জোরালো থাকলেও জনমত জরিপে মাহতাব উদ্দিন এগিয়ে রয়েছেন।এছাড়া সামসুল আলম প্রধানেরও রয়েছে বিপুল ইমেজ।এই দুজনের মধ্যে একজন মনোনয়ন পেলে সংকট থাকবে না বলে মনে করছেন সাধারন ভোটাররা।

এই উপজেলায় এখন পর্যন্ত যারা প্রচারে আছেন তাদের মধ্যে শামসুল আলম প্রধান ও মাহতাব উদ্দিনের নাম বেশ জোরেশোরে আলোচিত হচ্ছে।মাহতাব প্রচারে থাকলেও প্রচারে নেই শামসুল অালম প্রধান।হুমায়ূন কবির হিমু’র প্রচারণা উপজেলা সদরে ব্যানার ফেস্টুনের মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে বলে জানা গেছে। তবে ভোটাররা চাচ্ছে সবুজ অনুসারি কেউ মনোনয়ন পেয়ে এলাকার উন্নয়নে যৌথভাবে ভূমিকা রাখুক।অন্য মতাদর্শি কেউ নির্বাচিত হলে সাংসদ ও উপজেলা চেয়ারম্যানের মধ্যে উন্নয়ন কাজে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির জন্ম নিতে পারে।