মো: রবিউল ইসলাম: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ৫নং চন্ডিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও দক্ষিন চন্ডিপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ মিন্টুর নির্দেশে রানী বেগম (৩৩) নামের এক মহিলাকে শিকলে বেঁধে বেদম মারধর ও নির্যাতন চালানো হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ২৬ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার রাত ৯টায় উপজেলার চন্ডিপুর ইউপির ফতেহপুর গ্রামের ঠাকুর বাড়িতে। স্থানীয়রা আজ বুধবার সকালে চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতার হুমকী-ধমকী উপেক্ষা করে নির্যাতিতা রানী বেগমকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনা উপজেলাব্যাপী ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সূত্র জানায়, উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের ফতেহপুর গ্রামের ঠাকুর বাড়ির মোহাম্মদ উল্যার মেয়ে রানী বেমগকে একই বাড়ির ইয়াহিয়া মাষ্টারের ছেলে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মিন্টুর নির্দেশে বাড়ির শিরীন আক্তার এবং তার মেয়ে সুমি আক্তারসহ ৭/৮ জনের নেতৃত্বে বাড়ির সুপারি বাগানে গাছের সাথে সিকল দিয়ে বেঁধে বেদম গনপিটুনি দেয়। পরে রানী বেগমের আতœচিৎকারে পাশ্ববর্তী বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসলে রানী বেগম প্রানে রক্ষা পায়। একপর্যায়ে রাতেই লোকজন রানী বেগমকে উদ্ধার করা হলে চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভূঁইয়া ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মিন্টুর লোকজনের ভয়ে কেউ হাসপাতালে নিয়ে আসতে পারেনি। পরে বুধবার সকালে রানী বেগমকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিশ্চুক ঠাকুর বাড়ির এক বৃদ্ধ মহিলা জানান, মূলত রানী বেগম স্বামী পরিত্যাক্তা। বর্তমানে রানীর কাছে ৫লক্ষ টাকা আছে। ওই টাকা গুলো ভাগবাটোয়ারা করে খাওয়ার জন্য এর উপর বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলো। বাড়ির শিরীন আক্তার এবং তার মেয়ে সুমি আক্তারকে দিয়ে ওয়ার্ড সভাপতি মিন্টু ও চেয়ারম্যান এসব ঘটনা ঘটিয়েছে। শিরীনের মেয়ে সুমি আক্তার জানান, রানী নামের ওই মহিলা বাড়ির সবাইকে সবসময় গালি গালাজ করে আসছে। এবিষয়ে কামাল চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি রানী বেগমকে শিকল দিয়ে গাছের সাথে বেঁেধ রাখার জন্য বলেছেন। এ কারনেই আমরা বাড়ির সকলে মিলে বেঁেধ রেখেছি। অভিযুক্ত দক্ষিন চন্ডিপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ মিন্টু বলেন, সভাপতি হিসেবে বাড়ি ও এলাকার সুবিধা-অসুবিদা দেখার দায়িত্ব আমার রয়েছে। রানী নামের ওই মহিলা পাগল। দিনরাত শুধু মানুষকে গালাগাল করে। ঠাকুর বাড়ির সম্মানের কথা চিন্তা করে একটু শাষন করা হয়েছে। এতে দোষের কিছু হয়নি।

এব্যাপারে চন্ডিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কামাল হোসেন ভূঁইয়ার সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। রামগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ তোতা মিয়া জানান, বিষয়টি আমি জানি না। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।