জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে চোর সন্দেহে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে এক ইউপি সদস্যসহ ৭ জনের নামে যশোর আদালতে মামলা হয়েছে। উপজেলার মূলগ্রামের মৃত বদর উদ্দীন সরদারের ছেলে মশিয়ার রহমান সরদার বাদী হয়ে যশোর বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে মামলাটি করেছেন। যার নং- জি, আর- ২২/১৯।

আদালত থানায় দায়েরকৃত মামলার সাথে বাদীর অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কেশবপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার আরজিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, উপজেলার মূলগ্রামের মশিয়ার রহমান সরদারের ছেলে আনিন নাইম (১৫) কে গত ১১ ফেব্রুয়ারী রাত ৮টার দিকে ভান্ডারখোলা ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম জরুরী কথা আছে বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু আনিন নাইম ওই রাতে আর বাড়ি ফেরেনি। তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন ভান্ডারখোলা ইকবালের মোড়ে তার ছেলে আনিন নাইমের লাশ পড়ে আছে। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

এঘটনায় মশিয়ার রহমান সরদার বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় মামলা করেন যার নং- ১১, তারিখ- ১২/০২/১৯। পরবর্তীতে মশিয়ার রহমান খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, উপজেলার হাড়িয়াঘোপ গ্রামের আসাদুল ইসলামের মেয়ে সাদিয়া খাতুনের সাথে তার ছেলে আনিন নাইমের প্রেমের সম্পর্ক থাকার কারণে আসামী ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে তার ছেলেকে অজ্ঞাত স্থানে আটক রেখে শারীরিকভাবে নির্যাতন করাসহ অন্য আসামীদের সহযোগিতায় হত্যা করার জন্য মারপিট শুরু করে। আসামী শিমুল ইট দিয়ে তার ছেলের মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে পড়ে যায়। আসামী বারিক ইট দিয়ে তার ছেলের বুকে উপর্যুপরি আঘাত করে এবং অন্য আসামীরা তার ছেলের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করে। আসামী ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম তার ছেলের গলার ওপর পা দিয়ে চেপে ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

১২ ফেব্রুয়ারী ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে ভান্ডারখোলা রাস্তায় তার ছেলের লাশ ফেলে রাখে। মশিয়ার রহমান সরদার বাদী হয়ে পুনরায় আদালতে আসামীদের নাম উল্লেখ করে মামলাটি করেন। মামলার আসামীরা হলো, হাড়িয়াঘোপ গ্রামের মোনছপ আলীর ছেলে শিমুল হোসেন, জলিল মোড়লের ছেলে ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম, কাশেম খাঁর ছেলে নুরুজ্জামান, ময়েজ উদ্দীনের ছেলে রাশেদুল ইসলাম, ভান্ডারখোলা গ্রামের আসির মোড়লের ছেলে বারিক মোড়ল, তেঘরী গ্রামের আবুল মোড়লের ছেলে জিল্লুর রহমান ও ভোগতী গ্রামের বাবর আলী মোড়লের ছেলে সালাম মোড়ল। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা উপপরিদর্শক সুপ্রভাত মন্ডল জানান, আদালতে দায়ের করা মামলার কপি পেয়েছি। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক তদন্ত চলছে। আসামী গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত আছে।