মামলার বাদী নুর জাহান বেগম নয়ন

রবিউল ইসলাম: খুজেঁ পাওয়া যাচ্ছেনা লক্ষ্মীপুরের চাঞ্চল্যকার স্কুল ছাত্রী শিলা আক্তার হত্যা মামলার বাদী নুর জাহান বেগম নয়নকে । মঙ্গলবার সকালে মেয়ে শিলার মামলার খোজঁখবর নিতে আদালতে যাওয়ার পথে তিনি সদর উপজেলার উত্তর জয়পুর ইউনিয়নের উত্তর জয়পুর গ্রামের বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়ী ফিরেনি। পরিবারের সদস্যরা তাকে দিনভর কোথাও খুঁজে না পেয়ে মঙ্গলবার রাতে তার ছোট মেয়ে শিমু আক্তার বাদী হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানায় (যার নং ২১২/৫ .০৩.২০১৯ইং) একটি নিখোঁজ ডায়েরী করে। পুলিশ জানান, স্কুল ছাত্রী শিলা আক্তার হত্যা মামলার বাদী নিখোঁজের বিষয়টি নিয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানার ডায়রি করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে খোজখবরসহ দেখা হচ্ছে। নিখোঁজ নুর জাহান বেগম নয়নের মেয়ে শিমু আক্তার জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নিজ বাড়ি থেকে তার মা লক্ষ্মীপুর আদালতে তার বোন স্কুল ছাত্রী শিলা আক্তার হত্যা মামলায় হাজিরা দেওয়ার আদালতের উদ্দেশ্যে বের হয়ে আর বাড়ী ফিরেনি। পরবর্তীতে খোজ খবর নিয়েও সন্ধান পাওয়া যায়নি তার মাকে। বর্তমানে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যায়। লক্ষ্মীপুরের চাঞ্চল্যকার স্কুল ছাত্রী শিলা আক্তার হত্যা মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবি এড. সামছুদ্দিন জানান, বাদী নয়ন আদালতে আসতে বিলম্ব দেখে তার সহকারি ইছমাঈল হোসেন মোবাইলে জানতে চাইলে তিনি সিএনজি অটো রিক্সায় করে আদালতে আসছেন। সিএনজি চালক তাকে আদালতের দিকে না এনে অন্য কোন দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এর পর থেকে তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়। দত্তপাড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক জসিম উদ্দিন জানান, নিখোঁজ নুর জাহান বেগম নয়নের মেয়ের দায়ের করা ডায়েরীর প্রেক্ষিতে তিনি রাত ১২টায় থেকেই রাতেই তদন্ত কাজ শুরু করেছে। নুর জাহান বেগম নয়নের সন্ধানের জন্য তদন্ত অব্যহত রয়েছে। নিখোঁজ নুর জাহান বেগম নয়নের মেবাইল ট্যাকিংএ দেখা গেছে মঙ্গলবার সকাল ১১টা ৫৯ মিনিটে তিনি সর্বশেষ তার মোবাইলে কথা বলেন। তখন তার অবস্থান ছিল লক্ষ্মীপুর শহরের আদালত এলাকায় ডিবি রোডে। এর পর থেকে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যাচেছ। জানা গেছে,গত বছর ২মার্চ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার গোপালপুর দ্বারিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী ও পার্শ্ববর্তী উত্তর জয়পুর গ্রামের প্রবাসী দুলাল হোসেনের মেয়ে শিলা আক্তারকে শ্রেণী কক্ষে নকল করার কথিত অভিযোগে শিক্ষক শরীফ হোসেন ও রোজিনা বেগম বিদ্যালয় থেকে নির্যাতন করে বের করে দেয়। পরবর্তীতে সে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে সঙ্গা হারিয়ে ফেললে পরিবারের লোকজন তাকে রাস্তা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

এ ব্যাপারে ছাত্রী শিলার মা নুরজাহান বেগম নয়ন বাদী হয়ে অভিযুক্ত দুই শিক্ষক সহ ৪জনের বিরুদ্ধে আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আসামী পক্ষের লোকজন তাকে নিয়মিত প্রাণে হুমকী ধমকী দিয়ে আসছে বলে এর আগে বাদী পক্ষ থেকে অভিযোগ আনা হয়েছে।