সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরের আজগরা,বেতিলের বিভিন্ন মাদক আখড়ায় এভাবেই চলছে হেরোইন সেবন

মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ এনায়েতপুরে মাদক প্রতিরোধের নামে থানা পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যাপক আটক বানিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করে ছেড়ে দেয়া যেন এখন তাদের কর্মপন্থা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দু দিন থানা হেফাজতে আটক রেখে লাখ টাকা আদায় করে ছেড়ে দেবার ঘটনায় এখন নিন্দার ঝড় বইছে এলাকা জুড়ে। জানা যায়, জনসাধারনের অসচেতনা এবং পুলিশী ভুমিকা প্রশ্নবিদ্ধ থাকায় মাদকের বিস্তার বেড়েই চলছে এনায়েতপুর থানা জুড়ে। যে কারনে নেশায় আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত অন্তত ২০/২৫ জন ব্যক্তি মারা গেছে। তবে গত ৪ বছরে মাদক বেড়েছে প্রায় ৬০ শতাংশ। অনেকেই নতুন করে ইয়াবায় আসক্ত হয়ে পড়েছে। নেশা বিক্রয়ের ঘাটি খ্যাত মাদকপুরী আজগড়া, বেতিল, এনায়েতপুর হাট, খামারগ্রাম, গোপরেখী, হয়ে এনায়েতপুর কেজির মোড়, খোকশাবাড়ি, এনায়েতপুর হাসপাতাল সংলগ্ন, গোপিনাথপুর, রুপসী, সৈয়দপুর, ওদিকে গোপালপুর, রুপনাই, খুকনী জুড়ে বেড়েছে এর ব্যাপকতা। মাঝে মাঝে অভিযান চললেও থেমে নেই ইয়াবা, হেরোইন, ফেনসিডিল, মদ, গাজার বিস্তার। বর্তমানে মাদক বিরোধী অভিযানের মৌসুমে কিছুটা কৌশল অবলম্বন করে মাদক ব্যবসায়ীরা চালিয়ে যাচ্ছে ব্যবসা। ধরাও পড়ছে কোন-কোন মাদক ব্যবসায়ীরা। তবে এর মধ্যে অনেকেই আবার টাকার বিনিময়ে ছাড়া পেয়ে পুনরায় ফিরে আসছে অবৈধ ব্যবসায়। কত কয়েক মাস ধরে এনায়েতপুর থানা পুলিশের মাদক ব্যবসায়ীদের ধরে আটক বানিজ্যের ঘটনা এলাকা জুড়ে বেশ সমালোচিত। প্রায়ই লাখ-লাখ টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে মরণ নেশা বিক্রির ভিলেনদের। বিশেষ করে এনায়েতপুর হাটের ইয়াবা ব্যবসায়ী ইছা আহমেদকে ধরে ২ দিন থানায় আটক রেখে লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে গোপনে ছেড়ে দেবার ঘটনায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। গত রোববার রাতে নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করে থানার এসআই শহিদুল ইসলাম। পরে খবরটি শুনে তার ছেলে হাসেম থানায় গেলে তাকেও আটক করা হয়। তখন স্বজনেরা ৫৫ হাজার টাকা দিয়ে হাসেমকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে। এরপর ইছা আহমেদকে ছাড়িয়ে নিতে পুলিশ ২ লাখ টাকা দাবী করে। এ নিয়ে দীর্ঘ দেন-দরবার পর সোমবার রাতে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নেয়া হয়। বিষয়টি এখন ব্যাপক আলোচিত। তবে এনায়েতপুর থানার ওসি মাহবুবুল আলম ও এসআই শহিদুল ইসলাম মাদক ব্যবসায়ীকে ধরে টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেবার ঘটনা অস্বীকার করে জানান, থানায় আটক কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী তার সংশ্লিষ্টতার কথা জানালে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এনে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে দু দিন কেন তাকে আটক রাখা হয়েছিল এ প্রশ্নের জবাবে ওসি মাহবুবুল আলম বলেন, অপ্রাসংঙ্গীক কথা কেন বলছেন। এদিকে ওসি মাহবুবুল আলম প্রায় বছর খানেক আগে যোগদানের পর থেকেই নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িত। গত ৬ মাস ধরে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চলাকালে টাকার বিনিময়ে মাদক বিক্রেতাদের কৌশলে সহযোগীতা করেছেন। পুলিশের সাথে সখ্যতায় মাদক ব্যবসায়ীদের দালাল হিসেবে কাজ করেছে এনায়েতপুর হাটের টিন ব্যবসায়ী কবির হোসেন। এছাড়ার যেসব মাদক ব্যবসায়ীদের ধরা হতো যারা মোটা অংকের টাকা দিত তাদের স্থানীয় দালাল চক্রের সহযোগীতায় ছাড়িয়ে দেয়া হতো। গত গত সোমবার সন্ধ্যায় খামার গ্রামের নিজ বাড়ির পাশ থেকে মদ ইয়াবা ব্যবসায়ী আব্দুর রশিদ, নেশাখোর আমিরুল, মোস্তাফিজ সহ ৪ জনকে এসআই শহিদুল ধরে থানায় এনে মোটা অংকের টাকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। গত ২১ ফেব্রুয়ারী রাতে ব্রাক্ষ্মনগ্রামের ইয়াবা ব্যবসায়ী

শহিদুল ইসলাম এসআই শহিদুল খাজা ইউনুছ আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে আটক করে ১ লাখ টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। অভিযোগ রয়েছে, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী রাতে গোপিনাথপুরের ইয়াবা ব্যবসায়ী আবু হেনার বাড়ি থেকে এসআই মাহবুব হোসেন শিবপুরের নেশাখোর আশরাফ সহ ২ জনকে আটক করে থানায় এনে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেন। একই ভাবে ঐ এসআই মুহবুব এনায়েতপুর চৌধুরী বাড়ির পাশে জুয়ার আড্ডা হতে ৭ জুয়ারীকে ধরে ৭০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেন। এর আগে বেতিল চরের মাদক ব্যবসায়ী জেলহাজ আলীকে মাদক সহ ধরে ৬০ হাজার টাকা নিয়ে রাস্তায় ছেড়ে দেয়া হয়। গোপরেখীর মদ বিক্রেতা আশরাফকে মদ সহ ধরে থানায় এনে ৪০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া ছাড়াও গত ৩ সপ্তাহ আগে খামারগ্রামের মদ ব্যবসায়ী পঙ্কজ সরকারকে ধরে এসআই মাসুদ ৬০ হাজার টাকা নিয়ে রাস্তাতেই ছেড়ে দিয়েছে। গত ২ সপ্তাহ আগে বেতিলের মদ ব্যবসায়ী হাজের আলীকে ধরে ৬০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে এসআই শহিদুল। একই ভাবে গাজা সহ রুপসীর সোনাইকে ধরে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে রাস্তাতেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে। মাদক ব্যবসায়ীদের এভাবে ধরে এনে টাকা আদায়ে এনায়েতপুর হাট কেন্দ্রিক একটি সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এই সিন্ডিকেটে জড়িত মাদক ব্যবসায়ী, জুয়ারী এবং অপরাধীদের সাথে পুলিশের প্রকাশ্য সখ্যতা এলাকার সর্ব মহলে সমালোচিত। তবে এনায়েতপুর থানা পুলিশ এসব অপকর্মের সাথে জড়িত নয় বলে দাবী করেছে। তবে পুলিশের দায়িত্বশীল মহল থানা পুলিশের এমন অপকর্ম ও দুর্নীতি, অনিয়মের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা না নেয়ায় থানা জুড়ে পুলিশের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এখানো প্রায় ৪০/৫০টি মাদক স্পটে কৌশলে মাদক বিক্রি হচ্ছে। এ ব্যাপারে সদিয়াচাঁদপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মাদক বিরোধী মনিরুজ্জামান মনি জানান, মাদকের বিস্তার রোধে প্রশংসনীয় কোন উদ্যোগ নেই। আমরা দেখছি মাদক বিক্রি, সেবন, বিপনন অব্যাহত রয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের ধরে টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। তাহলে কিভাবে মাদক দুর হবে।