সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় দু’টি গামে এখন প্রায় সব বাড়তেই চলছে দর্জি কারখানা। সম্ভাবনা নয়। মিলেছে সাফল্য। এসব কারখানায় নারী কর্মি সংখ্যা বেশি। প্রায় সবাই গ্রাম্য গৃহবধু। সবাই দক্ষকর্মী হয়েছেন। নারী কর্মিদের বাড়তি আয়ের কল্যানে তাদের পরিবার গুলোয় আর্থিক স্বচ্ছলতা এসেছে। গ্রাম দুটি পরিচিতি পেয়েছে দর্জিগ্রাম। এখানকার কারখানায় তৈরী পোষাক এখন গোটা দেশে বিক্রি হচ্ছে। এখানেও মুজুরী বাড়ানোর দাবীতে আন্দোলন, কাজবন্ধ রাখার ঘটনা হয়েছে। উল্লাপাড়া উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের হাটদেলুয়া ও গোয়ালজানী গ্রাম দুটি পাশি পাশি অবস্থান। এক সময় পরিবারের লোকজন শুধুমাত্র কৃষি পেশায় ছিল। গরিব পরিবারগুলোর লোকজন দিনমুজুরী করত হাট দেলুয়া গ্রামের প্রায় ৭৫ বছর বয়সী আক্তার হোসেন প্রায় বার বছর প্রথম নিজ বাড়িতে পোষাক তৈরির কারখানা করেন। তিনি একটি সেলাই মেশিন দিয়ে কারখানা চালু করেন। এরপর একে একে কারখানা বেড়েছে। এখন গ্রাম দুটিতে স্থানীয় ভাবে বড় ছোট মিলে প্রায় ২’শ পোষাক তৈরি কারখানা গরে উঠেছে। এসব কারখানায় বিভিন্ন বয়সী পুরুষ ও নারী মিলে প্রায় দের হাজার কর্মী কাজ করছে। এর মধ্যে নারীদের সংখ্যা বেশি বলেই জানা যায়। এরা গ্রাম দুটিরই বসতি কারখানায় কাজ করা কর্মীরা প্রতি মাসে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আয় করছে। ঢাকার ইসলামপুর, নরসিংদির বাবুর হাট থেকে বিভিন্ন ধরনের কাপড় এখানে এনে তা দিয়ে পোষাক তৈরী করা হয়। এখানকার কারখানা গুলোয় প্যান্ট, সার্ট, গ্যাঞ্জি, টাউজারসহ অন্যান্য পোষাক তৈরী করা হয়ে থাকে। এসব পোষাক ঢাকার অভিজাত মার্কেট ছাড়াও রংপুর, লালমনিরহাট, সৈয়দপুর, কুড়িগ্রাম, রাজশাহী, চাপাইনবাবগঞ্জ, কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনা, বরিশাল, কুমিল্লা, শেরপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহসহ দেশের অন্যান্য এলাকাতেও পাইকেরী বিক্রি হচ্ছে। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী নিজেরাই এসে গ্রাম দুটি থেকে তৈরী পোষাক কিনে নিয়ে যায়। গ্রাম দুটির কারখানার মালিকেরা অর্থনৈতিকভাবে বেশ সাভলম্বী হয়েছে। কারখানা মালিকদের ক’জন জানান তাদের ব্যবসার পেছনে সরকারি কিংবা

বেসরকারি কোন সহায়তা নেই। বহু ঘাত প্রতিঘাতের মাঝে ব্যবসায় সাফল্য এসেছে। এর পেছনে কঠোর পরিশ্রম আর মেধা খাটাতে হয়েছে। কারখানায় কাজ করছেন এমন নারী কর্মীদের বক্তব্যে ঘরে বসে না থেকে সংসারের বাড়তি আয়ের জন্য কাজ করছেন। ভোরেই সংসারের কাজ শেষ করে কারখানার কাজে যোগদেন আবার বিকেলে কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরে সংসারের কাজ করেন। এর পরেও তারা খুশি যে এখানে কাজ করে মাস শেষে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আয় করছেন। হাট দেলুয়া গ্রামের হিরু মিয়ার বাড়িতে প্রায় ৫ বছর হলো দর্জি কারখানা চলছে। তার নিজ কারখানায় এলাকার ১০জন নারী কাজ করেন। এছাড়া আরও ১০জন নারী তাদের নিজ বাড়িতে কাজ করেন। তার স্ত্রী আম্বিয়া খাতুন নিজেও দর্জির কাজ করেন। এরপাশাপাশি কারখানার তদারকি করে থাকেন। আম্বিয়া খাতুন জানান নিজের কারখানায় কাজ করছেন বলে গর্ব হয়। প্রায় ৮ বছর ধরে সুফিয়া খাতুন কাজ করছেন আরেক নারী সালমা খাতুন ৬ বছর ধরে দর্জির কাজ করছেন। এরা প্রতি মাসে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আয় করছেন। এদের বক্তব্যে আয়ের টাকা সংসারের প্রয়োজনীয় সব কেনা কাটা, সন্তানদের পড়ালেখার পেছনে খরচ করে থাকেন। এর পাশাপাশি আয়ের টাকা জমিয়ে আরও আয় বাাড়াতে সে টাকা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করে থাকেন। কাটিং মাষ্টার শফিকুল ইসলাম জানান তিনি প্রতি মাসে ২২ থেকে ২৫ হাজার টাকা আয় করেন। এদিকে গত ক’মাস আগে কারখানায় মুজুরী বাড়ানোর দাবিতে কর্মীরা আন্দোলনের নেমেছিল বলে জানানো হয়। প্রায় দিন সাতেক সবগুলো কারখানা বন্ধ ছিল। পরে মুজুরী বাড়ানোসহ উভয় পক্ষের সমঝোতায় একটি ফয়সালা হয়।