সদরুল আইন: শ্রীপুরে হামলার সহিংসতার করায় টিভি সাংবাদিকের উপর হামলা,পুলিশী অভিযান,গ্রেফতার,পুলিশ সুপারের জনতার উদ্দেশ্য বক্তব্য,নির্বাচন পরবর্তি সন্ত্রাসীদের নানা মুখি তৎপরতায় জনজীবনে এক ধরনের অস্বস্তি ছড়িয়ে পড়েছে।

এসব অনভিপ্রেত ঘটনাসমুহের প্রেক্ষিতে গত রাত থেকে গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার( এসপি)শামসুন্নাহার গাজীপুর -৩ অাসনের সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজের অনুরোধে শ্রীপুরের সর্বত্র চলছে বিশেষ পুলিশী অভিযান।

ইতিমধ্যেই বেশ কিছু সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ এবং মাওনায় কিছুক্ষণ অাগে এক বক্তব্যে পুলিশ সুপার জনগনকে নিরাপত্তার অাশ্বস্ত দিয়ে এই অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন।

জানা গেছে, গতকাল রাতে উপজেলা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর একদল সন্ত্রাসী শ্রীপুরের মাওনা এলাকায় ছাত্রলীগ নেতা রবিনের বাসায় হামলা চালায়।সেই হামলার ভিডিইও চিত্র তখন মোবাইলে ধারন করছিলেন মাইটিভির শ্রীপুর প্রতিনিধি সোহেল রানা।

সে সময় সন্ত্রাসীরা সোহেল রানার মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে তাকে মারধর ও জখম করে রক্তাত্ব করে। মূমুর্ষ অবস্থায় সোহেলকে ময়মনসিংহ মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

এই ঘটনার খরব পেয়ে গাজীপুরের এসপি সামসুন্নাহার তাকে দেখতে অাসেন এবং ঘটনার বিশদ শোনার পর বিশেষ পুলিশী অভিযান শুরু করেন।এই অভিযানে এখন পর্যন্ত ৩০/৩৫ জন সন্ত্রাসী গ্রেফতার হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে গাজীপুর -৩ অাসনের সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে শ্রীপুর থানাকে অনুরোধ করেছেন বলে জানা গেছে।

কিছুক্ষণ গাজীপুরের এসপি সামসুন্নাহার মাওনায় এক জনকীর্ণ সমাবেশে বলেছেন, সন্ত্রাসী সন্ত্রাসীই, তার কোন রাজনৈতিক পরিচয় নেই।

সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে এবং তা অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত চলবে।মিল ফ্যাক্টরী ব্যবসার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।কোন সন্ত্রাসী দখলবাজকে এসব দখল করতে দেওয়া হবে না।

জনগনের জানমাল হেফাজত করার দায়িত্ব অামাদের।অামরা প্রজাতন্ত্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি হিসেবে মানুষের নিরাপত্তা যতদিন নিশ্চিত না হয় ততদিন এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

জানা গেছে শ্রীপুরের সর্বত্র নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দিয়েছেন অাইনশৃঙ্খলা বাহিনী।বিশেষ অভিযান অব্যাহতভাবে চলছে।সর্বত্র অাইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।

জনজীবনে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করলেও সাধারন মানুষ পুলিশের এ তৎপরতা ও অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছে।তবে নিরীহ মানুষ যাতে পুলিশী হয়রানীর শিকার না হয় সে বিষয়টি দেখার জন্য সাধারন মানুষ নন্দিত পুলিশ সুপার সামসুন্নাহারের প্রতি অাহবান জানিয়েছে।