কায়সার হামিদ: অবশেষে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প নির্মাণের সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসক।জানা যায় উখিয়া-টেকনাফে ৩০টি রোহিঙ্গা শিবির থাকা সত্বেও একটি এনজিও উখিয়া মুছারখোলা বনবিটের চৌখালী স্থানে দেড়’শ হেক্টর বনভূমিতে ফের নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প নির্মাণের পায়তারা শুরু করেছিল। এতে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছিল এক শ্রেণীর কর্মকর্তা। এ ঘটনায় এলাকাবাসি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে।
জানা গেছে, উখিয়া মুছারখোলা বনবিটের চৌখালী স্থানে এনজিও সংস্থা ব্রাক ইতোমধ্যে সেখানে বোল্ডডোজার দিয়ে বেশ কয়েকটি পাহাড় কেটে সমতল ভূমিতে পরিণত করেছে। গ্রামবাসি প্রতিবাদ করলেও কোন পাত্তাই দেয়নি এনজিও ব্রাক। জেলা প্রশাসক বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই ক্যাম্প নির্মাণ বন্ধের নির্দেশ দেন। সহ শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের।
স্থানীয়রা জানান, ওই জমিতে তাদের নামে বনববিভাগের ২০১০-১১সালে সৃজিত আগর বাগানের দলিল রয়েছে। নিরহ গ্রামবাসিদের উচ্ছেদ করে ক্যাম্প বসানো ষড়যন্ত্র করছিল ব্রাক এনজিও। গাছ কাটা ছাড়াও সমানতালে পাহাড় কাটা অব্যাহত রাখে তারা। স্থানীয়দের উচ্ছেদ করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপনে কার্যক্রম শুরু করায় উত্তেজনা দেখা দেয়। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে জারীকৃত পত্রে উল্লেখ আছে নতুন করে রোহিঙ্গাদের জন্য কোন ধরণের স্থাপনা নির্মাণ করা যাবেনা। এই নিষেধাজ্ঞা তোয়াক্কা না করে বেশ কয়েক দিন যাবৎ পালংখালীর চৌখালী মাঠ স্থানে ৪-৫টি বোল্ডডোজার দিয়ে নির্বিচারে স্থানীয় জন-সাধারণের সামাজিক অংশীদারিত্ব সবুজ বনায়ন নিধন করে পাহাড় কাটছিল কয়েকটি স্বার্থন্বেষী এনজিও সংস্থা।

Previous articleচায়ের দোকানে ঝগড়া,কেটলীর গরম পানিতে দগ্ধ ৩
Next articleকারাভ্যন্তরেও বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের নিরাপত্তা নেই: ফখরুল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।