রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ সোহাগ হাওলাদার

রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ সোহাগ হাওলাদার এর দক্ষতায় প্রতিনিয়ত পাল্টে যাচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের চিত্র। মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানের রাজাপুর উপজেলা পরিষদের সকল অনিয়ম দুর করে পরিষদকে ঢেলে সাজিয়েছেন বর্তমান ইউএনও মো: সোহাগ হাওলাদার। অবকাঠামো উন্নয়ন সহ সার্বিক কর্মকান্ডে ফিরে এসেছে সচ্ছলতা ও গতিশীলতা। জনসেবার মান ও বেড়েছে। প্রশাসনিক কাঠামো হয়েছে অত্যন্ত শক্তিশালী। জনপ্রতিনিধিদের কর্মকান্ডে বেড়েছে স্বচ্ছতা, গতিশীলতা ও জবাবদিহিতা। দীর্ঘদিনের এই অনিয়ম ও দুর্নীতির বেড়াজাল ছিন্ন করে উপজেলা পরিষদকে একটি মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার। তার সততা ও নিষ্টার কারণে রাজাপুর উপজেলা পরিষদে আজ প্রাণ ফিরে পেয়েছে।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও কর্মকর্তা-কর্মচারী সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নেওয়া পদক্ষেপ রাজাপুর উপজেলা প্রশাসন অক্ষরে অক্ষরে পালন করছে। ফলশ্রুতিতে তার দক্ষতা ও যোগ্যতা সবার নজর কেড়েছে। সভ্য সমাজ সৃষ্টির লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের মাদকমুক্ত, যৌতুক-বাল্যবিয়েসহ যৌন হয়রানি রোধে সাফল্যের সঙ্গে বাস্তবায়ন ও দায়িত্ব তদারকি করে থাকেন তিনি। বিশেষ করে জমি আছে, ঘর নেই- এমন মানুষকে ঘর তৈরি করে দেওয়ার প্রকল্প ও সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর ভিজিডি কার্ডের তালিকা প্রণয়নের কাজে সততার সঙ্গে কাজ করে সবার মন জয় করেছেন। এছাড়াও তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, মোবাইল ফোন, ই-মেইলের মাধ্যমে পাওয়া বিভিন্ন সমস্যার সমাধানসহ উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের সরেজমিনে পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করায় কৃষক, শ্রমিক, জেলে, তাঁতী, শিক্ষক, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিকসহ সকল স্তরের মানুষের কাছে জনপ্রিয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হয়ে উঠেছেন জনাব মোঃ সোহাগ হাওলাদার।এতদিন উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজে ছিল না কোন কর্মচাঞ্চল্য। জনসেবার মান ছিল সর্বনিম্ন। এখানকার অফিসগুলো চলতো ওপেন ঘুষ-দুর্নীতি। বিরাজমান এই অনিয়মের আখড়া উচ্ছেদ করে অল্প সময়ের মধ্যে উপজেলা পরিষদকে সু-শৃঙ্খল পরিবেশে ঢেলে সাজান বর্তমান ইউএনও। তিনি এ বছর (২০১৯) সালের প্রথম দিকে রাজাপুর উপজেলায় যোগদানের পর উপজেলা পরিষদের দুর্বল প্রশাসনকে একেবারেই চাঙ্গা করে তোলেন যেখানে এসে মানুষ হয়রানির বদলে দ্রুত কাজ সমাধান করতে পারছেন। ইউএনওর কঠোর তৎপরতার মুখে এখানকার অফিসগুলোতে যেমন জনসেবার মান বেড়েছে। তেমনি তাদের নানা কর্মকান্ডে ফিরে এসেছে স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা। উপজেলা পরিষদ এলাকায় আইন শৃঙ্খলা উন্নয়ন ঘটেছে চোখে পড়ার মত। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার উন্নয়নমূলক কাজ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার উপর ভরসা না করে ইউএনও নিজেই তদারকি করেন। সরকারী বিধি-বিধান অনুযায়ী কোন কাজ সম্পন্ন না হলে বিল-প্রদান থেকে তিনি বিরত থাকেন। ইউএনওর তৎপরতায় ইতিমধ্যেই উপজেলার জনপ্রতিনিধিদের কাজে স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে তার কঠোরতার মুখে অনেক জনপ্রতিনিধি তার প্রতি নাখোশ।নিয়মিত মাসিক মিটিংয়ে তিনি কর্মকর্তা কর্মচারী সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সততা ও নিষ্টার সাথে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন এবং কারো কাজে গাফিলাতি ও অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা প্রহণের হুশিঁয়ার উচ্চারন করেন। ফলে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও তার প্রতি ক্ষিপ্ত। এদিকে উপজেলা কৃষি, ত্রাণ, মৎস্য, পশু, শিক্ষা, সমবায়, সমাজসেবা, যুব উন্নয়ন, স্বাস্থ্য পরিবার-পরিকল্পনা, বিআর ডিবি, প্রকৌশলী ও নির্বাচন অফিস ঘুরে দেখা গেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মের গতিশীলত, যা লক্ষ্যণীয়। অর্থাৎ উপজেলা পরিষদের কর্মকান্ড এখন এক মডেল পরিবেশে রুপ নিয়েছে। তিনি স্কুল ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ও কঠোর হুশিঁয়ার আরোপ করেন। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক একজন কর্মচারী জানান ইউএনও স্যার সরকারী আইনের বাইরে কোন কাজ করেন না। তার প্রচেষ্টায় আজ উপজেলা পরিষদ একটি মডেল উপজেলা রুপ নিয়েছে। তিনি সরকারী নীতিমালার আলোকে জনকল্যাণে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে সাহসের সাথে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে সকলের সহযোগিতা পেলে তাঁর দ্বারা আরো ভালো কিছু সম্ভব।
রাজাপুর প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম বলেন , এ রকম সরকারি প্রজেক্টগুলোতে অনেক রকম দুর্নীতিই হয়, বরাদ্দের টাকা নিয়ে নয়ছয় করে অনেকেই যে পরিমাণ বরাদ্দ আসে, তার সিকি ভাগও সাধারণ মানুষ পায় না। তার উদ্যোগের কারণে মানুষ যেমন ভালো ঘর পাচ্ছেন, তেমনি সরকারি টাকার সদ্ব্যবহারের ব্যাপারটাও প্রশংসিত হচ্ছে এলাকায়। এ উপজেলায় ৭২টি দরিদ্র পরিবারই ঘর বরাদ্দ পেয়েছে। সরকারের সুদৃষ্টি আর স্থানীয় সাংসদ বজলুল হক হারুন ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুজ্জামান সাহেবের দিকনির্দেশনায় ইউএনও সংশ্লিষ্ট কাজের তদারকি করছেন।

রাজাপুর উপজেলার ইউএনও মোঃ সোহাগ হাওলাদার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে দরিদ্র মানুষকে ঘর করে দিচ্ছেন। তার মহৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করায় আমার কাজ। ইউএনও বলেন, আমি নিজেকে জনগণের চাকর মনে করি। আমার দপ্তর মানুষের সেবায় নিয়োজিত সবসময়। আমি হয়তো একদিন থাকব না, মানুষ আমার ভালো কাজটাকে সারাজীবন মনে রাখবে।
রাজাপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সোহাগ হাওলাদার (১৭১০৯) মহোদয় ৩১তম ব্যাচের বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। তিনি এর পূর্বে পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি), ভোলা জেলার লালমোহন ও মনপুরা উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) , মনপুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ তিনি পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও সুনামের সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তার জন্ম বরিশাল জেলায়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্কেটিং বিষয়ে বিবিএ ও এমবিএ পড়াশুনা শেষ করে সিভিল সার্ভিসে যোগ। তিনি ব্যাক্তিগত জীবনে বিবাহিত এবং দুই সন্তানের জনক।

Previous articleধর্ষণের পর স্কুলছাত্রীকে ভেন্টিলেটর দিয়ে ফেলে দিল পুলিশ সদস্য
Next articleবিএনপির ‘পকেট’ কমিটি গঠনের অভিযোগে বিএনপির নেতার সংবাদ সম্মেলন!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।