এস এম শফিকুল ইসলাম: সদ্য ঘোষিত জয়পুরহাট জেলা বিএনপির ‘পকেট’ কমিটি গঠনের অভিযোগ তুলে বাতিলের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন জয়পুরহাটের আক্কেলপুর পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক পৌর বিএনপির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সরদার। রোববার বেলা ১১ টায় উপজেলা পরিষদের সামনে তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে রেজাউল করিম সরদার বলেন, আমি এই মনগড়া ‘পকেট’ কমিটি গঠনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি ২০০২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আক্কেলপুর পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচিত কাউন্সিলর ছিলাম। এবং ২০১৫ সালের ৩০শে ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন পেয়ে ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলাম। ওই নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্তের বাহিরে সাবেক পৌর বিএনপির সভাপতি আলমগীর চৌধুরী বাদশা মোবাইল মার্কা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করায় আমি পরাজিত হই। তিনি নির্বাচন না করলে আমি নিশ্চিত জয়ি হতাম। রেজাউল করিম সরদার আরও বলেন, গত ২০১৫ সালে ২৩ ফেব্রুয়ারী বিএনপির কেন্দ্রের কর্মসূচী সমাপ্ত করে আমার নিজ ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানে বসে থাকা অবস্থায় আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মীদের দ্বারা হামলার শিকার হই। ওই হামলার ঘটনায় আমি ঢাকা হলিফেমেলী হাসপাতালের আইসিওতে দীর্ঘ ১৫ দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলাম। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দ্বারা মিথ্যা মামলার আসামী হয়েছি। রাজনীতি করতে গিয়ে আমি আর্থিকভাবে মারতœক ক্ষতিগ্রস্থ্য হয়েছি। বর্তমানে আমি ও আমার পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছি। ভেবেছিলাম এতো ত্যাগ স্বীকার করার কারনে দল আমাকে মূল্যায়ীত করবেন এবং জেলা বিএনপির কমিটিতে যোগ্যতা অনুযায়ী আমাকে কোন একটি পদে রাখা হবে বলে দীর্ঘদিন থেকে আশায় ছিলাম। কিন্তু গত ১৫ মে সদ্য ঘোষিত জেলা বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়। সেখানে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগের যোগদান কৃত ৮-১০ নেতাকর্মীকে ওই কমিটিতে বিভিন্ন পদে রাখা হয়েছে। এবং যারা দূঃসময়ে বিএনপির মাঠপর্যায়ে কোন ভূমিকাই রাখেননি তাদেরকে এই কমিটিতে রাখা হয়েছে। তিনি অবিলম্বে তথাকথিত কমিটি বাতিল করে তাকে নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করার দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজু, পৌরসভার আট নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি ও কাউন্সিলর আব্দুল মবিন ভোনা, উপজেলা বিএনপির সদস্য হুমায়ন খালেদ, সাত নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি রেজাউল করিম, ছাত্র নেতা সবুজ হোসেন, ডি.এম বাবলু, আজাম্মেল হোসেন প্রমুখ।