ধানের দাম না পেয়ে দিশেহারা কৃষক

এস এম শফিকুল ইসলাম: আকাশের কালো মেঘ দেখলেই মনের ভিতরে আতকে উঠছে জয়পুরহাটের কৃষকদের। গেল বছরের বন্যার আমন ধানের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ঋণ নিয়ে এবার বোরো আবাদ করেছিলেন কৃষকরা। বোরো আবাদের বাম্পার ফলন হলেও কয়েক দিনের ফনির আঘাতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাই এই মুহুর্তে সময়মত ফসল ঘরে তোলা নিয়ে তৈরী হচ্ছে সংশয়। কারণ ধান কাটার জন্য মিলছে না পর্যাপ্ত শ্রমিক। আবার ফসলের নায্যমুল্যও পাচ্ছেন না কৃষকরা। জয়পুরহাটের দিগন্তজোড়া মাঠে এখন সোনালী ধান আর ধান। ফলন ভাল হওয়ার পরও হাসি নেই কৃষকের মুখে। বন্যায় আমন ধানের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বিভিন্ন ব্যাংক, এনজিও ও মহাজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন কৃষকরা। এরই মধ্যে ফণির আঘাতে ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে, তাই সম্পূর্ণভাবে ধান না পাকার আগেই জেলার বিভিন্ন মাঠে শুরু হয়েছে আধা-পাকা ধান কাটা মাড়াইয়ের কাজ। তবে এই সোনালী ধান ঘরে তুলতে প্রয়োজনী অনুপাতে শ্রমিক না পাওয়ায় দেখা দিয়েছে শ্রমিক সংকট। আবার স্থানীয় শ্রমিক পাওয়া গেলেও মজুরী বেশ চড়া। এই শ্রমিক সংকট আর মজুরী বেশী ও বৃষ্টির কারণে ধান কাটা মাড়াইয়ে অনেকটায় বিরম্বনায় পড়তে হচ্ছে। কৃষকেরা বলেন, এক বিঘায় জমির ব্যয় হচ্ছে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আর উৎপাদন হচ্ছে ২০ মণ। সেই সাথে প্রতি বিঘায় লোকসানের বোঝা বইতে হচ্ছে ১ থেকে ২ হাজার টাকা। তাছাড়া ধান ফলানোর জমিতে অন্য ফসল ফলানোও যায় না। আমরা ধানের নায্য মূল্য না পেলে ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ, ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ, সার ও কীটনাশকের টাকা পরিশোধ করতে পারব না। তাদের ইচ্ছে ছিল, ধান বিক্রি করে সেসব ধার-দেনা পরিশোধ করে বাকি ফসল দিয়ে সারা বছর সংসার চালাবেন। কিন্তু বাজারে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে উৎপাদন খরচের চেয়েও অনেক কম দামে। তাই সরকারিভাবে ধান ক্রয়ে নায্য মূল্য নিশ্চিতের দাবী জানিয়েছেন তারা। সরকারিভাবে দ্রুত ধান ক্রয় শুরু করা এবং সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনার দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন সংগঠন। নায্য মূল্য না পেলে কৃষক আর ধানচাষে আগ্রহী হবে না বলে মনে করেন জেলা কৃষক ও ক্ষেতমুজুর সংগ্রাম পরিষদের নেতারা। জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর উপ-পরিচালক সুধেন্দ্র নাথ রায় বলেন, এবার বোরো মৌসুমে আমাদের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ফলন বেশি হয়েছে। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ২ লক্ষাধিক মেট্রিক ২ টন, আশা করা যায় কাটা শেষ হলে উৎপাদন তা ছাড়িয়ে যাবে। বর্ষা মৌসুমের আগেই আধা পাকা ধান কর্তন করে ঘরে তোলার পরামর্শ কৃষি বিভাগের। চলতি মৌসুমে জেলায় বোরো ধানের চাষ হয়েছে ৭২ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে। এ পর্যন্ত ধান কর্তন হয়েছে ২৫শতাংশ জমিতে। শ্রমিকের সহজলভ্যতায় ধান কাটা নিয়ে বিরম্বনার অবসান ঘটানোর পাশাপাশি ধানের বাজার মুল্য নিশ্চত করা গেলে

এবারের উৎপাদিত এ ধান এই জেলা সহ দেশের খাদ্য নিরাপত্তা বজায় রাখতে অনেকটা সহায়তা করবে, এমনটি মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

Previous articleপুঁজিপতিরা বিশাল ঋণ মওকুফ পায় আর কৃষক ভর্তুকি পায় না: রিজভী
Next articleকেশবপুর প্রাণিসম্পদ অফিস কম্পাউন্ডার ও নাইট গার্ড দিয়ে চলছে পশু চিকিৎসা!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।