জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে কম্পাউন্ডার, নাইট গার্ড, পিয়ন দিয়ে চলছে গরু, ছাগলের চিকিৎসা। আর এরাই ফার্মেসী মালিকের দেয়া মেয়াদ উর্ত্তীর্ণ ইনজেকশন পুশ করায় একটি ২ মাস বয়েসি ফ্রিজিয়ান জাতের গরুর অকাল মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৮ মে পৌর এলাকার মধ্যকুল গ্রামে। দীনমজুর কৃষক মকবুল হোসেন একমাত্র সম্বল গরুটি হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। অভিযোগ উঠেছে, বর্তমান ওই ফার্মেসী মালিক বিষয়টি ধামাচাপা দিতে মোটা অংকের টাকার মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছেন। জানা গেছে, গত ১৫ মে উপজেলার মধ্যকুল গ্রামের দীনমজুর কৃষক মকবুল হোসেনের একমাত্র সম্বল গাভীটির ২ মাস বয়সী এ্যঁড়ে বাছুরটি অসুস্থ হলে কেশবপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে আনা হয়। এ সময় অফিসের কমপাউন্ডার কার্তিক চন্দ্র ব্যবস্থাপত্রে একমি কোম্পানীর টাইফুর ভেট নামের একটি ইনজেকশন লিখে দেন। গুরুর মালিক কৃষক মকবুল হোসেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সংলগ্ন মেসার্স ইসলাম মেডিকেল হল থেকে ব্যবস্থাপত্র দেখিয়ে টাইফুর ভেট ইনজেকশন নিয়ে দিলে প্রাণিসম্পদ অফিসের লোকজন ফাইলের গায়ের নির্দেশনাপত্র না পড়েই বাছুটিকে পুশ করেন। বাছুরটি বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে মারাতœক অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরের দিন সকালে গ্রাম্য ডাক্তার বাছুরটিকে ওই ইনজেকশন পুশ করার সময় দেখতে পান ওষুধটি ৪ মাস মেয়াদ উত্তীর্ণ। তখন তিনি বাছুরটিকে ইনজেকশন পুশ না করে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে নিয়ে যেতে বলেন। এ সময় ঘটনাটি ফাঁস হয়ে পড়ে। গরুর মালিক মকবুল হোসেন বলেন, ১৬ মে বেলা ১১ টায় অসুস্থ বাছুরটিকে প্রাণিসম্পদ অফিসে নিয়ে আসলে ডাক্তার বিকল্প চিকিৎসা দিয়ে মিথ্যা আশ্বাস দেখিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। অবশেষে মেয়াদ উত্তীর্ণ ওই ওষুধের বিষক্রিয়ায় দীর্ঘ ৩ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ১৮ মে সকাল ৯ টায় বাছুরটি মারা যায়। একমি কোম্পানীর ওই ইনজেকশন ফাইলের গায়ের নির্দেশনাপত্রে লেখা রয়েছে, ব্যাচ নং-ভিও-৬৭৭০০৫, উৎপাদন তারিখ- জানু-২০১৭, শেষ জানু – ২০১৯। অথচ সব জেনে শুনেই ওই ফার্মেসী মালিক তার হাতে ৪ মাস মেয়াদ উর্ত্তীর্ণ ওই ইনজেকশন ধরিয়ে দেয়। অফিসের একটি সূত্র জানায়, কেশবপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের কর্মকর্তা ডা. অলকেস রায় সরকারি প্রশিক্ষণে বিদেশে রয়েছেন। এছাড়া ওই অফিসের একমাত্র ভেটেরিনারি সার্জন ডাক্তারের পদটিও দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। ফলে অফিসের কমপাউন্ডার, নাইটগার্ড, পিয়ন দিয়েই চলছে ছাগল, গরুর চিকিৎসা। এদিকে, ওই ফার্মেসী মালিক ঘটনাটি ধামা চাপা দিতে বিভিন্ন মহলে মোটা অংকের টাকার মিশন নিয়ে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন। ফলে শেষ পর্যন্ত কৃষক মকবুল হোসেন ন্যায় বিচার পাবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের কমপাউন্ডার কার্তিক চন্দ্র বলেন, আক্রান্ত বাছুরটিকে বিকল্প চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল। এরপরও বাছুটিকে বাঁচানো গেল না।

Previous articleজয়পুরহাটে ধানের দাম নেই, ঋণ পরিশোধের চিন্তায় দিশেহারা কৃষক
Next articleচালের দাম দ্বিগুণ দেখিয়ে বিদেশে টাকা পাচার করা হয়েছে: মেনন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।