কেন্দুয়ায় এবার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারী গণধর্ষনের শিকার, আটক ৩

হুমায়ুন কবির: নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় পোষাক কর্মী গণধর্ষনের রেশ কাটতে না কাটতেই আবারও গণধর্ষনের শিকার হয়েছেন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী এক নারী (২০)। তিনি উপজেলার গড়াডোবা ইউনিয়নের গড়াডোবা গ্রামের চঁান মিয়ার মেয়ে। এ ঘটনায় পুলিশ ৩ ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো-গড়াডোবা ইউনিয়নের চন্দলারা গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের পুত্র কাজল মিয়া (৪০), একই গ্রামের আব্দুর রহমানের পুত্র হুমায়ুন (২৮), রহিছ উদ্দিনের পুত্র জামর“ল ওরফে জাম্বু (২৫)। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, কেন্দুয়ার সিনিয়র এএসপি সার্কেল মাহমুদুল হাসান, ওসি মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার (১০জুন) বিকালে। পুলিশ ও ওই নারীর ভাই রতন মিয়া জানান, গড়াডোবা গ্রামের চঁান মিয়ার বিবাহিতা বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মেয়ে ৬ মাস ধরে বাবার বাড়ীতে অবস্থান করছিলেন। সোমবার বিকালে তিনি একই ইউনিয়নের শিবপুর খালার বাড়ী থেকে নিজ বাড়ীতে আসার সময় চিকনী গ্রামে এলে চান্দপাড়া গ্রামের উলে­খিত ৩/৪জন যুবক ভিকটিমকে জঙ্গলের মধ্যে নিয়ে ধর্ষন করে। পরে পার্শ্ববর্তী পূবাইল গ্রামের আব্দুল মান্নাফের গোয়াল ঘরে নিয়ে আবারও দ্বিতীয় দফায় ধর্ষন করে। বাড়ীর মালিক বিষয়টি টের পেলে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়। বিষয়টি জানাজানি হলে ধর্ষক কাজলকে জনতা সাখড়া বাজারে আটক করে পুলিশে দেয়। পরে ধর্ষক হুমায়ুন ও জামর“ল ওরফে জাম্বুকে রেন্ট্রিতলা এলাকা থেকে আটক করে এবং ওই নারীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। ওই নারীর বড় ভাই চা দোকানদার রতন মিয়া আরোও জানান, এক বছর পূর্বে তার এই বোনকে ঈশ্বরগঞ্জ বিয়ে দিয়েছিলেন। হাবাগোবার কারণে স্বামী তাকে বাবার বাড়ীতে পাঠিয়ে দেন। ৬ মাস ধরে বাবার বাড়ীতে অবস্থান করছিল। খালার বাড়ী থেকে নিজ বাড়ী আসার পথে বোনটি আমার দুই দফা গণধর্ষনের শিকার হয়েছে। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। এসপি সার্কেল (কেন্দুয়া) মাহমুদুল হাসান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি এবং ৩ ধর্ষককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। গ্রেফতারকৃতরা ধর্ষনের কথা স্বীকার করেছে। ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে এবং ভিকটিমের ভাই রতন মিয়া বাদী হয়ে কেন্দুয়া থানায় মামলা করেছেন।