ফেসবুকে ছবি দেখে 'মায়ের' সন্ধান পেল ছেলে

আব্দুল লতিফ তালুকদার: ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেল স্টেশনের সামনে গত শুক্রবার (০৭ জুন) ভোর সকালে একটি গাড়ির সাথে ধাক্কা লেগে অজ্ঞাত এক প্রতিবন্ধী মহিলা রাস্তার পাশে ছিকটে পড়ে গুরুত্বর আহত হয়। সে সময় মহাসড়কের যানজট নিরসনে ডিউটি করছিলেন বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার এসআই মো.মেরাজুল ইসলাম। ঘটনাটি দেখে দ্রুত এগিয়ে যান মহিলার কাছে। দেখতে পায় মহিলাটি প্রচন্ডভাবে আঘাত পেয়েছে।

এরপর এসআই মেরাজুল ইসলাম তাৎক্ষণিক বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোশারফ হোসেন ও কালিহাতী থানার সার্কেল এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদুর রহমান মনিরকে জানানো হয়। তাদের সার্বিক সহযোগিতা ও নির্দেশনায় দ্রুত টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। খুব গুরুত্ব সহকারে তার সেবাও প্রদান করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালে পাঠানোর পরপরই সকাল সাড়ে ৮টার টার দিকে ‘বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানা’ নামে ফেসুবক আইডিতে ওই অজ্ঞাত মহিলার সন্ধান চেয়ে পোস্ট করা হয়। সামাজিক যোগাযোগ গণমাধ্যমে পোস্ট করার সাথে জেলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনসহ ফেসবুক ব্যবহারকারীরা পোস্ট কপি ও শেয়ার করলে ভাইরাল হতে থাকে। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা ও থানায় ওই মহিলার সন্ধান চেয়ে ই-মেইল করলে অন্যান্য জেলা ও থানা ফেসবুক আইডি ও পেইজে পোস্ট করা হয়।

এরপর টানা চার দিন ওই মহিলার চিকিৎসা চলার পর গত মঙ্গলবার (১১ জুন) তার সুস্থ্যতা নিশ্চিত করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

তারপর চিকিৎসা শেষে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানা পুলিশ হাসপাতাল থেকে থানায় নিয়ে আসেন। করা হয় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ। কোনো ঠিকানাই বলতে পারেনি। কিছুক্ষণ পর আবার জিজ্ঞাবাদ করা হলে জেলার নাম বলেন পাবনা। ধীরে ধীরে তাকে আরো প্রশ্ন করা হয়। প্রশ্নের উত্তরে শুধুই বলেন পাবনার বিভিন্ন উপজেলার নাম বলেন। তখনি মহিলার ছবিসহ পাবনার প্রত্যেক থানায় অবগত করা হয়।

বুধবার (১২ জুন) সকালের দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু থানায় হঠাৎ ডিউটি পুলিশের কাছে ফোন আসে এক লোকের। বিস্তারিত বলেন মহিলার পরিবার। অবশেষে ওই অজ্ঞাত মহিলার সন্ধান পরিচয় পায় বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানা। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে সামাজিক যোগাযোগ গণমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে ছবি দেখে ছুটি আসেন মহিলার ছেলে শফিকুল ইসলাম শফু।

দুপুরে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানায় পৌঁছান ওই মহিলার ছেলে মো. শফিকুল শফু। তিনি জানায়, তার মায়ের নাম মোছাঃ রোকেয়া বেগম (৪৭), তার বাবার নাম মৃত আব্দুল রহিম ব্যাপারী। সে পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার ১নং পুংগলী ইউনিয়নের কেনাই গ্রামের বাসিন্দা।

মহিলার ছেলে শফিকুল ইসলাম বলেন- তার মা প্রতিবন্ধী। ঠিক মতো কথা বলতে পারেন না। গত দু’মাস আগে কাউকে কিছু না জানিয়ে বাড়ী থেকে নিখোঁজ হোন। বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে মায়ের সন্ধান পায়নি। এ বিষয়ে থানায় কোনো জিডি না করা হলেও পুলিশকে জানিয়ে রাখা হয়। গত সোমবার (১২ জুন) রাতে ফেসবুকে তার মায়ের ছবি দেখতে পেয়ে পোস্টে দেয়া মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করে পরদিন মঙ্গলবার (১১ জুন) দুপুরে ছুটে আসেন টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানায়। বিকেলের দিকে তার মাকে নিয়ে রওনা হয় নিজ গ্রামে। যাওয়ার আগে সেতু পূর্ব থানার সকল পুলিশসহ সকল পুলিশ কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শফু।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোশারফ হোসেন বলেন- সামাজিক যোগাযোগ গণমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় শনাক্ত হয়। সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর অবশেষে ছেলের কাছে তার মাকে হস্তান্ত করা হয়েছে। এ সফলতা আল্লাহর রহমতে ও সকলের প্রচেষ্টায়
সম্ভব হয়েছে।