কলাপাড়ায় জরাজীর্ন টিনশেড ঘরে পাঠদান, শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় ২নং টিয়াখালী ইউনিয়নে রজপাড়া দ্বীন-ই- এলাহী দাখিল মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের ঝুকি নিয়ে জরাজীর্ন টিনশেড ঘরে এক অংশে চলছে পাঠদান কার্য্যক্রম। অন্য অংশে বৃষ্টির পানি কাঁদামাটি। মাদ্রাসাটিতে ২০০১ সনে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে নির্মিত ৩ কক্ষ বিশিষ্ট ১তলা ভবন যা সিডর, আইলা ও বিভিন্ন সময়ে ভূমিকম্পে ভবনটির দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে। ভবনটির ছাদ ঘেমে পানি ঢুকছে। যে কোন মুহূর্তে ধসে পরে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ভবনটির ৩ টি কক্ষের ১টিতে শিক্ষক মিলনায়তন ও অফিস কক্ষ, বাকী ২টি কক্ষে চলছে পাঠদান। বাকী ৮টি শ্রেণীর পাঠদান কার্যক্রম চলছে ১টি জরাজীর্ণ টিনশেড ঘরে যার মাঝে মাঝে টিনের চালা ও বেড়া নেই। অধিকাংশ টিন মরিচা পরে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। বিভিন্ন সময়ে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ এ ঘরটিতে ক্লাশ চলাকালীন সময়ে সরাসরি বৃষ্টির পানি ঢুকছে। বই, খাতা, ব্যাগ সহ শিক্ষার্থীদের বৃষ্টিতে ভিজে ক্লাশ করতে হচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, বৃষ্টির পানিতে টিনশেড ঘরের পাঠদান কক্ষের মেঝেতে পানি জমে কাঁদা হয়ে গেছে। যা খোলা আকাশের নিচে পাঠদানের সমতুল্য। এভাবে প্রতিনিয়িত বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষার্থীরা প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পরেছে। উল্লেখ্য ঘূর্নিঝড় ফণির আঘাতে টিনশেড ঘরের চালা ও বেড়া উড়েগেলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকায় প্রতিষ্ঠানটির নাম সহ উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন কিন্তু এখনও প্রতিষ্ঠানটিতে কোন ধরনের সাহায্য সহযোগীতা পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে মাদরাসার সুপারিনটেনডেন্ট এ.বি.এম হাবিবুর রহমান বলেন, মাদ্ধসঢ়;রাসাটিতে বর্তমানে ১০টি শ্রেণীতে প্রায় ৪ শত শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে। বৃষ্টির দিনে জরাজীর্ন টিনশেড ঘরে পাঠদানে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। এ ছাড়াও মাদ্ধসঢ়;রাসা বিল্ডিং ভবনের দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় অত্র মাদরাসার ৩

কিলোমিটারের মধ্যে কোন সাইক্লোন সেল্টার নাই। অত্র মাদরাসায় সরকারি ভাবে ১টি দ্বিতল ভবন নির্মান করা হলে একদিকে যেমন মাদ্ধসঢ়;রাসার শিক্ষার পরিবেশ ফিরে পাবে অন্যদিকে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে অত্র এলাকার মানুষ উপকৃত হবে।