কলাপাড়ায় শিক্ষকের উপর হামলার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন ও মানববন্ধন

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া আলআমিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহবুব আলম বাবুল মৃধার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক ও এলাকাবাসী। রোববার দুপুরে ক্লাস বর্জণ করে বিদ্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচী পালন করে। মানববন্ধনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের উপর হামলাকারী কবির মৃধা, খবির মৃধা, আউয়াল মীর, নুর আলম, রুহুল আমিন মৃধা ও রুবেল মৃধাসহ জড়িত সকল সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানান। চম্পাপুর ইউনিয়নের মাছুয়াখালী গ্রামের মানুষের মাছ ধরার একমাত্র খালটি দখল করে কবির মৃধা ও আউয়াল মীর দীর্ঘ ১০ বছর ধরে অবৈধভাবে দখল করে এক হাজার পরিবারকে জিম্মি করে লাখ লাখ টাকার মাছ বিক্রি করে আসছে। এসব ঘটনায় শিক্ষক বাবুল মৃধার নেতৃত্বে এলাকার মানুষ কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়। যার প্রেক্ষিতে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনুপ দাশ খালটির দখল ছেড়ে দিতে কবির মৃধা গংদের আল্টিমেটাম দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শনিবার দুপুরে কলাপাড়া পৌর শহরে প্রধানন্ত্রীর জন্মদিনের র‌্যালিতে অবস্থানকালে বাবুল মৃধাকে মারধর করেন কবির মৃধা ও তার সহযোগীরা। তাকে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় শিক্ষক বাবুল মৃধা এ কলাপাড়া থানায় একটি এজাহার দাখিল করেছেন। পাটুয়া আলআমিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ইউসুফ আলী বলেন, শিক্ষক বাবুল মৃধার উপর হামলার ঘটনায় বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অভিভাবকরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে দুপুরে ক্লাস বর্জণ করে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। এতে অভিভাবক, এলাকাবাসী ও পাশ্ববর্তী পাটুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও অংশ নেয়। এলাকার কৃষক আলাউদ্দিন হাওলাদার জানান, গত উপজেলা নির্বাচনে তাঁরা নৌকায় ভোট দেয়ায় কবির মৃধা ও আউয়াল মীর বাহিনী মারধর করেছে। এদের কাছে মানুষ জিম্মি হয়ে আছে। শুকনো মৌৗসুমে তরমুজবহনকারী যানবাহন থেকে এরা চাঁদা তোলে। কলাপাড়া একটি প্রভাবশালী মহলের শেল্টারে এরা এলাকায় জুয়াড় আসর বসায়। বর্তমানে এ ঘটনায় মাছুয়াখালী চম্পাপুরে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, শিক্ষক বাবুল মৃধার এজাহারের কপি পেয়েছেন। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।