টাঙ্গাইলে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

আবুল কালাম আজাদ: টাঙ্গাইলে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ মন্টি ঘোষ হত্যা মামলায় স্বামী রনি ঘোষকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন। দণ্ডিত রনি ঘোষ টাঙ্গাইল শহরের সাহা পাড়ার রবি ঘোষের ছেলে। কো‌র্টের টৃত্যুদণ্ডের পিপি একেএম নাছিমুল আক্তার নাছিম জানান, মামলা চলাকালে দণ্ডিত স্বামী রনি ঘোষ উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হন। পরে সাজার ভয়ে তিনি আত্মগোপনে চলে যান।গৃহবধূ মন্টি ঘোষ হত্যা মামলায় স্বামী রনি ঘোষকে মৃত্যুদ- ও এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেয়া হয়েছে।তবে এ মামলায় গৃহবধূ মন্টি ঘোষের শ্বশুর রবি ঘোষ ও ভাশুরের স্ত্রী পূর্ণিমা ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়। আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন আইনজীবী মো. আরফান আলী মোল্লা। উল্লেখ্য,গাজীপুর জেলার নীলনগর গ্রামের চিনি ঘোষের মেয়ে মন্টি ঘোষের সঙ্গে টাঙ্গাইল শহরের সাহাপাড়ার রবি ঘোষের ছেলে রনি ঘোষের ২০১৩ সালের ৩০ জুন বিয়ে হয়। বিয়ের মাত্র আড়াই মাসের মাথায় ১০ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য বিগত ২০১৩ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর রাতে টাঙ্গাইল শহরের সাহাপাড়ার স্বামী রনি ঘোষ গৃহবধূ মন্টি ঘোষকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এ বিষয়ে ১৫ সেপ্টেম্বর নিহতের মা চিনি ঘোষ বাদী হয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে টাঙ্গাইল মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ স্বামী রনি ঘোষ, শ্বশুর রবি ঘোষ ও ভাশুরের স্ত্রী পূর্ণিমা ঘোষকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট প্রদান করেন

টাঙ্গাইলে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে বৃদ্ধের মৃত্যু আবুল কালাম আজাদ,টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরে যমুনা নদীর ভাঙনের হাত থেকে রক্ষার জন্য বসতবাড়ী সরাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে লাল খান নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছে। আর এ ঘটনায় আহত হয়েছে চারজন। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার তারাই গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে দুজনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।নিহত লাল খা একই গ্রামের কুরবান খানের ছেলে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী মোল্লা জানান,উপজেলার তারাই গ্রামে হঠাৎ করে যমুনা নদীতে ভাঙন শুরু হয়েছে।যমুনা নদীর ভাঙনের হাত থেকে বসতঘর রক্ষার জন্য ঘরের চাল সরাতে গিয়ে বিদ্যুস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে লাল খা নিহত হয়।এতে আরো চারজন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে দুইজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।