প্রতীকী ছবি

শহিদুল ইসলাম: শার্শার বাগআঁচড়ায় আবুল কালাম নামের এক পুলিশের সোর্সের সহযোগিতায় বাল্য বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বাগআঁচড়ার সাতমাইল আমতলা পাড়ায়।

জানাগেছে, যশোরের শার্শার বাগআঁচড়ার সাতমাইল এলাকার আমজেদ শেখের সপ্তম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে তিশা খাতুন (১৩ ) এর সাথে কয়েক মাস পূর্বে একই গ্রামের আব্দুল খালেক গাজির ছেলে সাব্দুল্লাহ (৩৬) এর বিবাহ ঠিক হয়। কিন্তু মেয়ের বয়স ১৩ বছর হওয়ায় এলাকার সচেতন মহল এই বাল্য বিবাহতে আপত্তি করে।

সে সময় বিবাহ বন্ধ হয়ে যায়। সম্প্রতি সাতক্ষীরার আশাশুনি থেকে উঠে আসা বাগআঁচড়া সাতমাইল এলাকার ঘরজামাই কথিত পুলিশের সোর্স আবুল কালাম সাব্দুল্লার কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে প্রশাসন ম্যানেজ করে সচেতন মহলকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে আইন অমান্য করে এই বাল্য বিবাহ দেয়। এ সময় সচেতন মহল প্রশাসন কে জানালেও প্রশাসন নিরব থাকে।

এদিকে এই বাল্য বিবাহ সংবাদ পেয়েও প্রশাসন নিরব ভূমিকায় থাকায় এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে বাল্য বিবাহর সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে।

এ ব্যপারে বাল্য বিবাহে সহযোগিতা কারী পুলিয়ের সোর্স আবুল কালামের সাথে তার মুঠো ফোন ০১৭২৫ – ৪৫৩৯৫৭ নম্বরে বার বার যোগাযোগ করলও কথা বলা সম্ভব হয়নি।