ঝালকাঠিতে বন্ধুসভার শরৎ উৎসব

রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘কাশফুলের ছোঁয়ায় শরৎ দেখা’ উৎসব। প্রথমআলো বন্ধুসভা শুক্রবার বিকালে বিসিক শিল্পনগরীর কাশফুল বনে এ উসবের আয়োজন করে। ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। দুই মাস পর পরই আমাদের দেশে ঋতুর পরিবর্তন হয়। এই ঋতু পরিবর্তনে এখন বইছে শরৎকাল। আর প্রকৃতিতে যখন শরৎকাল আসে তখন কাশফুলই জানিয়ে দেয় শরতের বার্তা। শরতের বিকালে নীল আকাশের নিচে দোলা খায় শুভ্র কাশফুল। প্রকৃতির পালা বদলের খেলা এখন চলছে শরতের শেষ সময়। নদীর ধারে কাশফুল ফোটার যে বর্ণনা সাহিত্যে, সে শরৎকালের কল্যাণেই। কিংবা ‘নীল আকাশে কে ভাসালে সাদা মেঘের ভেলা’ এটাও তো শরতের জন্য। বাঙালি জীবনে শরতের উদ্ধসঢ়;‌যাপন ভালোই হয়। এমনকি শহুরে জীবনেও। পোশাকে নীলুসাদা, কাশবনে বেড়াতে যাওয়া, অন্দরে শিউলির আমেজ-শরৎ মিশে আছে আমাদের জীবনযাপনে। শরৎ দেখা উৎসবে শুভ্র কাশফুল দেখা ও ফুলের ছোঁয়া নেয়া, নীল আকাশ ও শরৎ প্রকৃতির মোহনীয় রূপ উপভোগ করা এবং শরৎ নিয়ে আলোচনা, কবিতা আবৃত্তি, নাচ, গান এবং ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে সুগন্ধা নদী ভ্রমণ উৎসবে অন্তর্ভূক্ত ছিল। টিআইবির সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সহসভাপতি ও বন্ধুসভার উপদেষ্টা হেমায়েত উদ্দিন হিমু এতে প্রধান অতিথি এবং কলতান শিল্পী গোষ্ঠীর পরিচালক সুভাষ চন্দ্র বিশ^াস ছিলেন বিশেষ অতিথি। বন্ধুসভার সভাপতি শাকিল রনির সভাপতিত্বে মোঃ আবুবকর, বিথী শর্মা বণিক, ইসরাত সুলতানা নিশি, সাথী আক্তার, সেতু বিশ^াস, লিজা আক্তার, শ্যামা কর্মকার, কানিজ ফাতেমা প্রমুখ আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেন। বন্ধুসভার কর্মকর্তা ও সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। শারদীয় আরাধনায় হিন্দু সমাজকে উৎসবমুখর করে, বিজয়ার বেদনায় ব্যথিত করে বিদায় নিচ্ছে শরৎ। শীতের আগমনী গেয়ে আসছে হেমন্ত। শিশিরভেজা কুড়ি আর পাতা তারই জানান দিচ্ছে। আশ্বিনের অন্তিম নিঃশ্বাসের শব্দ শোনা যাচ্ছে প্রকৃতিতে। বিদায়ী শরতের সাদা মেঘের ভেলায় ভাসতে ভাসতে আসছে হেমন্ত। কান পাতলেই শোনা যায় ঝরা পাতার গান। আবার ডালা ভরবে নতুন ফসলে।