মাদকে ছেয়ে গেছে শার্শার সীমান্তবর্তী একাধিক গ্রাম

শাহারিয়ার হুসাইন: যশোরের শার্শা উপজেলার সীমান্ত দিয়ে মাদক পাচার বৃদ্ধি পেয়েছে,সর্তকতার সাথে অতি গোপনে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সমাজের কিছু অসৎ ব্যক্তিরা।

মাদকের বিরুদ্ধে শুরুর অভিযান আর বর্তমান অভিযানের অনেক ফারাক।বিজিবি ছাড়া পুলিশের কাছ থেকে আশানুরূপ ফল পাওয়া যায়নি। যার কারনে আবারো আগের মতোই মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবনকারীরা চাঙ্গা হয়ে গেছে।

উপজেলার বেনাপোল, পুটখালি, গোগা, কায়বা ইউনিয়নের একাধিক গ্রামে মাদকে ছেয়ে গেছে।প্রশাসনের ঢিলেমির সুযোগ নিয়ে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন রুট ব্যবহার করে মাদক ব্যবসায়ীরা উঠতি তরুনদের হাতে তুলে দিচ্ছে ফেনসিডিল, ইয়াবা, গাঞ্জা নামক বিষ।

এজন্য প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করেই চলছে প্রায় শতাধিক স্থানে চলছে রমরমা এই মাদক ব্যবসা।
মাদকের সন্ধানে দূরদূরান্ত থেকে মাদকসেবিরা ছুটে আসছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য উপজেলার বাগঁআচড়া কলেজ রোড হয়ে কায়বা ইউনিয়নের চালিতাবাড়িয়া,রাঘবপুর, রুদ্রপুর, দাদখালি, সাতমাইল পশুরহাটের রাস্তাহয়ে গোগা ইউনিয়নের সেতাই, আমলা, গোগা,বিলপাড়া,রামচন্দ্রপুর,অগ্রভুলাট,পাঁচভুলাট,কালীয়ানি, জামতলা টেংরা চৌরাস্তা হয়ে কন্যাদাহ মহিষাকুড়া,বালুন্ডা,কৃষ্ণপুর,বারপোতা,শিকড়ী। পুটখালি,বেনাপোল গাতিপাড়া,ছোট আঁচড়া,গয়ড়া খড়িডাঙা,বৃত্তেআঁচড়া,দৌলতপুর,তেরঘর হয়ে ভারতীয় সীমান্ত পর্যন্ত।প্রতিনিয়ত মাদক সেবন করতে মাদকসেবিরা তাদের গন্তব্যে পৌঁছে মাদক সেবন করছে।

সকাল থেকে গভির রাতপর্যন্ত মাদকসেবীরা মটরসাইকেল রিক্সা-ভ্যান যোগে এই সকল এলাকায় এসে মাদক সেবন করছে। যার প্রভাব পড়ছে সমাজে,তৈরি হচ্ছে সন্ত্রাস বাড়ছে খুন,গুম,ছিনতাই,চুরি,ডাকাতি,ধ্বংস হচ্ছে যুবসমাজ,নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ পিছিয়ে পড়ছে দেশ।

একাধীক স্থানে মাদকের ছড়াছড়ি হওয়ায় নিত্য নতুন উঠতি বয়সের যুবকেরা মাদক সেবনে ঝুঁকে পড়ছে এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে ঐ এলাকার অবিভাবক’রা। বিভিন্ন জায়গা থেকে মাদকসেবিরা আসা-যাওয়ার আনাগোনা দেখে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।তারা মাদকের হাত থেকে তাদের সন্তানদের রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের আসু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।তার সাথে সাথে যেসকল রুট ব্যবহার করে দূরদূরান্ত থেকে মাদকসেবিরা মাদক গ্রহণের জন্য দিনরাত আসা যাওয়া করছে সেই সমস্ত সড়কে প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানোর জন্য জোর দাবী করেন।

এই বিষয়ে প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা সকলে মাদক মুক্ত সমাজ গঠন ও মাদক পাচার বন্ধের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন।