উল্লাপাড়ায় কামারগ্রাম ব্রীজ পয়েন্ট এখন যেন অঘোষিত রেল ষ্টেশন

সাহারুল হক সাচ্চু: ঢাকা-ঈশ্বরদী রেলপথের উল্লাপাড়ার কামারগ্রাম ব্রীজ পয়েন্ট এখন অঘোষিত রেল ষ্টেশন হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ ব্রীজটি পারাপারের আগে ট্রেন গুলো পুরোপুরি থামিয়ে দিয়ে এরপর আবার চলছে। এ সুযোগে প্রতিটি ট্রেনেই বিভিন্ন গন্তব্যে আসা যাওয়ায় যাত্রীরা ট্রেনে উঠা নামা করছে। আজ শনিবার দুপুরে সরেজমিনে সেখানে গিয়ে আন্তঃনগর তিনটি ট্রেনে এমন চিত্র দেখা গেছে। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা চিলাহাটি নীলসাগর এক্সপ্রেস ও পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস এবং পঞ্চগড় থেকে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন তিনটি ব্রীজটির কাছাকাছি এসে একেবারে থামিয়ে দেওয়া হয়। এরপর ব্রীজটির তদারকির দায়িত্ব থাকা ওয়েম্যানের কাছ থেকে ক্লিয়ারেন্স নেওয়ার পর ব্রীজটি খুবই ধীরগতিতে পার হয়ে চলতে দেখা গেছে। ওয়েম্যান লংকা সরকার জানান, এ রেলপথে চলাচলকারী সব ক’টি ট্রেন এভাবে থেমে তারপর আবার চলছে। গত প্রায় মাস দেড়েক হলো এভাবে ট্রেনগুলো চলাচল করছে। মাঝে ক’দিন না থেমে কমগতিতে ট্রেনগুলো ব্রীজটি পারাপার হয়েছে। ঢাকা থেকে পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস থেকে দশ থেকে বারোজন যাত্রী এখানে ট্রেন থেকে নামেন। এদের মধ্যে আবু হানিফ, রফিকুল, শাহাদত ও কবির হোসেন জানান, ঢাকা থেকে এরা ট্রেনটিতে যাত্রী হয়ে উঠেছিলেন। এরা উল্লাপাড়া বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা। তারা জেনেছেন কামারগ্রাম ব্রীজটি পারাপারের আগে সব ট্রেনই থামিয়ে দেওয়া হয়। এখানে নামলে তাদের বাড়ীর দুরত্ত কম ও যেতে সহজ হবে ভেবে সুযোগ বুঝে নামেন। এ রেলপথে প্রতিদিন আন্তঃনগর ট্রেনসহ মালবাহী বহু সংখ্যক ট্রেন নিয়মিত চলাচল করে থাকে। এখানে উল্লেখ্য কামারগ্রাম রেল ব্রীজটির ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় ব্রীজটি পারাপারের দুর্ঘটনা রোধে প্রাথমিকভাবে লোহার ফ্রেম ও কাঠের পাটাতন দিয়ে ঠেকনা (সিসিক্লিক) ব্যবস্থা করা হয়েছে। ব্রীজটির নিচে পানি শুকিয়ে গেলে ক্ষতিগ্রস্থ ব্রীজটি মেরামত করা হবে বলে জানানো হয়।