উল্লাপাড়া পৌর শহরে বর্জ্য নিয়ে নাগরিক অভিযোগ

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পৌরসভার নিজস্ব ডাম্পিং পয়েন্ট না থাকা বড় সমস্যা হয়েছে। এখানে সেখানে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য। দু’দিন এক জায়গায় তো পরের ক’দিন আরেক স্থানে বর্জ্য ফেলা হচ্ছে। আর ফেলতে গেলেই বাধা আসছে। বর্জ্য ফেলা নিয়ে শহরের বসতি নাগরিকদের অভিযোগ বাড়ছে। এদিকে যেখানে সেখানে বর্জ্য ফেলায় পরিবেশ দুষণ আর নাগরিক যন্ত্রনার হয়ে দেখা দিয়েছে। পৌরসভা থেকে বিষয়টির সমাধানে জমি কিনতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের দরকার রয়েছে বলে জানানো হয়। বিগত ১৯৯৪ সালে উল্লাপাড়া পৌরসভা গঠন হয়েছে। এটি এখন প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা। পৌর এলাকায় বসতি সংখ্যা দিন যেতেই বাড়ছে। সে সাথে বাড়ছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। প্রতিদিনই বর্জ্যরে পরিমাণ বাড়ছে। পৌরসভার নিজস্ব ও নির্দিষ্ট ডাম্পিং পয়েন্ট না থাকায় এসব বর্জ্য শহরের বেশ ক’টি জায়গায় ফেলা হচ্ছে। পৌর শহরের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া পাকা সড়কে ধারে দু’থেকে তিন জায়গায় বেশির ভাগই বর্জ্য ফেলা হচ্ছে। এ সড়কের দু’পাশে বিভিন্ন বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও বহু সংখ্যক বসতি পরিবার রয়েছে। এসব বর্জ্যরে কারণে সেখানকার পরিবেশ নোংরা আর বাতাসে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। বর্জ্য ফেলা স্থানের আশেপাশের পরিবেশ বসতি ও চলাচলকারীদের কাছে বেশ দুর্ভোগের হয়েছে। পৌরসভার ঝিকিড়া মহল্লার বাসিন্দা মোঃ হায়দার আলী জানান, তাদের এলাকায় এভাবে বর্জ্য ফেলায় পরিবেশ বেশ দুষনীয় ও দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এ নিয়ে তিনি একাধিকবার স্থানীয় কাউন্সিলরের কাছে অভিযোগ জানালেও বর্জ্য ফেলা বন্ধ হয়নি। পৌরসভার কঞ্জারভেন্সী কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান, শহরের বিভিন্ন স্থানে এভাবে বর্জ্য ফেলতে গেলেই পরিছন্ন কর্মীদেরকে সেখানকার বসতিরা আপত্তি ও অনেক সময় বাধা দিচ্ছে। শহরের ওয়ার্ড ভিত্তিক ষ্টাটার্ট হাউজ না থাকায় পরিছন্ন কর্মীদেরকে বর্জ্য সংগ্রহে বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয় বলে তিনি জানান। উল্লাপাড়া পৌরসভা মেয়র এস এম নজরুল ইসলাম জানান, পৌরসভার নিজস্ব ডাম্পিং পয়েন্ট থাকা জরুরী একটি বিষয়। প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হলেও এটি না থাকায় নিরুপায় হয়ে শহরেরই কোন না কোন জায়গায় বর্জ্য ফেলতে হচ্ছে। নিজস্ব ডাম্পিং পয়েন্টের জন্য পৌরসভা এলাকার মধ্যেই জমি কিনতে হবে। এছাড়া সেখানে আসা যাওয়ায় সড়ক পথ থাকতে হবে। আবার ডাম্পিং পয়েন্টের জন্য জমি চিহিৃত করতে গেলেই নানা অজুহাত দেখানো হয়। স্থানীয় পৌরসভা এলাকার মধ্যে জমির দাম অনেক বেশী। এদিকে পৌরসভা থেকে জমি কেনা হবে সে পরিমান অর্থ নেই। এর জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের দরকার রয়েছে।