শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলানিষেধ অমান্য করে সাঁথিয়ায় পানি নিস্কাশন ক্যানালে সুতিজালের বাঁধ

নিষেধ অমান্য করে সাঁথিয়ায় পানি নিস্কাশন ক্যানালে সুতিজালের বাঁধ

আব্দুদ দাইন: পাউবো’র মাইকিং করা সত্তেও নিষেধ অমান্য করে পাবনার সাঁথিয়া-বেড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাগেশ্বরী-ডি-২ ক্যানাল “ কৈটলা পাম্প হাউজ হতে মুক্তার ধর ” পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার ক্যানালের প্রায় ১০টি স্থানে মাছ ধরার জন্য সুতি জালের বাঁধ দিয়েছেন এলাকার মৎস্য শিকারিরা। এ সব ক্যানালে সুতিজালের বাঁধের জন্য পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় কমছে না প্রায় ২০টি বিলের পানি। ফলে কৃষকের বীজতলা তৈরিসহ রবি মৌসুমে হাজার হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ, মরিচ, রসুন, শরিষার আবাদ ব্যাহত হওয়ায় অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগে জানা যায়,বেড়ার কৈটোলা পাম্প হাউজ হতে মুক্তর ধর পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি নিস্কাশনের প্রায় ৩০ কিলোমিটার পানি নিস্কাশন ক্যানাল রয়েছে। এ ক্যানাল দিয়ে বর্ষা শেষে সাঁথিয়াÑবেড়ার প্রায় ২০টি বিলের পানি নিস্কাশন হয়। ঐসব ক্যানালে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ ধরার জন্য প্রায় ১০টি স্থানে সুতি জালের সামগ্রিক প্রস্তুতি নেওয়াসহ ৮ টি স্থানে সুতি জাল পাতা হয়েছে। ফলে সাঁথিয়া বেড়া উপজেলার সব ক’টি বিলের (মুক্তর ধর, সোনাই বিল, ঘুঘুদহ বিল, জামাই দহ, বড় গ্রাম বিল, খোলসা খালি বিল, কাটিয়াদহ বিল, গাঙ ভাঙ্গার বিল ,টেংড়া গাড়ীর বিল, পাশ্ববর্তী বেড়া উপজেলার কাজলকুড়া বিল,শিকর বিল,ইটে কাটার বিল,ও ধলপুরা বিল) পানি বের হতে না পারায় হাজার হাজার হেক্টর জমির ধান পানিতে নষ্ট হওয়ার আশংকা করছে কৃষকেরা। সময়মত পানি বের না হলে বীজ তলা তৈরি করতে না পারার আশংকা করছেন এলাকার কৃষকেরা। তারা অভিযোগে বলেন, শরিষা, পিঁয়াজ, রসুন, ধান, মরিচ ইত্যাদি ফসল যথাসময়ে বপণ করতে না পারলে তারা ব্যাপক ক্ষতির সম্মখীন হবেন। ইতো মধ্যে চলতি আমন মৌসুমে জমিতে ধান পাকতে শুরু হয়েছে। আবার অনেকের ধান পেকেও গেছে। আগামী ১সপ্তাহের মধ্যে কৃষকেরা তাদের বপনকৃত ধান কাটতে শুরু করবে। জমিতে অতিরিক্ত পানি থাকায় যথা সময়ে ধান কাটতে না পারলে জমিতে থাকা পাকা ধান পানিতে নষ্ট হয়ে যাবে বলে আশংকা তাদের। আফড়া গ্রামের কৃষক রইজ উদ্দিন খাঁ জানান, আমার ধান পেকে গেলেও পানির কারণে কাটতে পারছি না। কবে বীজতলা তৈরি করবো আর কবেই বা জমিতে বপন করবো। ঐ এলাকার কৃষক আলতাফ ও ইউসুফ আলী জানান, আমরা একদিকে যেমন ধান কাটতে পারছি না অন্য দিকে বীজতলা দেওয়ার জন্য সংগৃহীত ছাইগুলো সড়কের পাশে দিনের পর দিন পড়ে রয়েছে। সময়মত ঐ ছাই জমিতে যদি দেয়া না হয় তবে তা রোদ্রে শুকিয়ে গুনগতমান কমতে থাকবে। সরজমিনে এলাকা ঘুরে দেখা যায় শামুকজানী বাজারের দক্ষিনে, দত্তপাড়া গ্রামের পশ্চিমে, বড়গ্রাম , তালপট্টি নামক স্থানের ব্রীজের পুর্বে ও পশ্চিমে , সাতানীর চর ব্রীজের দু’পাশসহ প্রায় ৬টি স্থানে সুতি জাল স্থাপন করছে। তালাই,পলিথিন,বাঁশ দিয়ে এইসব সুতিজালের বাধ দেয়ার ফলে কচুরিপানা আটকে পানি প্রবাহে বাধা সুষ্টি হচ্ছে। এদিকে যারা সুতি জালের বাধ দিয়ে মাছ শিকার করছে তারা বলছেন আমরা পানি

উন্নয়ন বোর্ড ও উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর থেকে লীজ নিয়ে সুতি জালের বাঁধ তৈরি করেছি। এ বিষয়ে পাবনা পও’র অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত ও বেড়া পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আঃ হামিদ জানান, পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টি করে সুতিজালের বাঁধ দিয়ে মাছ শিকারের জন্য কাউকে কোন লীজ দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে এলাকায় মাইকিং করে বিষয়টি সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। কৃষকের ক্ষতি হবে আমরা এমনটা মেনে নিব না । এ বিষয়ে সরেজমিন পরিদর্শন করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জিব কুমার গোস্বামী বলেন, গত ৩০ অক্টোবর উপজেলা উন্নয়ন সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। গেল সপ্তাহে কৃষক প্রতিনিধিসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মৌখিক অভিযোগ দিয়েছেন। ইউএনও তাৎক্ষনিক সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের স্থানীয়ভাবে এটাকে অপসারণ করার ব্যপারে নির্দেশ দিয়েছেন। এতে যদি অপসারণ না হয় তবে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments