চা শ্রমিক ও অংশীজনদের সঙ্গে ডাইফ এর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিক এবং সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর। শনিবার সন্ধ্যায় অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার উপমহাপরিদর্শকের কার্যালয়ে ‘কর্মক্ষেত্রে নারীর প্রতি সহিংসতা এবং যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার’-শীর্ষক উক্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব কে এম আলী আজম বলেন, জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা রোধ এবং নারী শ্রমিকদের প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ও এর অধীন দপ্তরসমূহের জন্য আমরা ‘Operational strategy to prevent and respond to Gender Based Violence and Gender Discrimination in the work place’-শীর্ষক স্ট্রাটিজি প্রণয়ন করেছি। ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে হলে বাংলাদেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারীগণকে এগিয়ে আসতে হবে। আর নারীর প্রতি সহিংসতা বজায় থাকলে এটি কখনোই সম্ভব হবে না। বর্তমান সরকার শ্রমবান্ধব সরকার। নারীরা এখন দেশের বড় বড় জায়গা থেকে দেশে অবদান রাখছে। কর্মক্ষেত্রে নারীর প্রতি সহিংসতা এবং যেকোন ধরনের অশোভন আচরণ রোধে আমরা সদা প্রস্তুত রয়েছি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক জনাব শিবনাথ রায় বলেন, চা শিল্পে লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা, প্রজনন ও যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ে চা শ্রমিক ও মালিকপক্ষের সঙ্গে ইতোমধ্যে অধিদপ্তর কর্তৃক ৩০ টি অ্যাডভোকেসি সভা এবং ২৬ টি ‘Social Behavioral Change Communication (SBCC)’ প্রশিক্ষণ আয়োজন করা হয়েছে। আমরা পর্যায়ক্রমে সারা দেশের সকল সেক্টরে কর্মরত নারীদের শোভন কর্মপরিবেশ নিশ্চিতে এরকম আরও প্রকল্প হাতে নেব। নারী শ্রমিকদের প্রতি শোভন আচরণ নিশ্চিতে দপ্তর কর্তৃক ইতোমধ্যে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক জনাব মোঃ মাহবুবুল হাসান বলেন, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসত, নারীর প্রজনন স্বাস্থ্য এবং যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ে চা, চামড়া এবং পোশাক শিল্প কারখানার শ্রমিকদের ইতোমধ্যে শতাধিক অ্যাডভোকেসি সভা আয়োজন করা হয়েছে। নারী শ্রমিকদের প্রতি শোভন আচরণ নিশ্চিত করতে ভবিষ্যতে এরকম আরও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাখন লাল কর্মকার ও সাধারণ সম্পাদক রাম ভোজন কৈরি চা শ্রমিকদের কল্যাণে শ্রম আইনের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বাস্তবায়নের ব্যাপারে সুপারিশ করেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জনাব এ কে এম মিজানুর রহমান (অতিরিক্ত সচিব), শ্রীমঙ্গলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব নজরুল ইসলাম, শ্রম অধিদপ্তরের উপপরিচালক জনাব নাহিদুল ইসলামসহ শ্রমিকবৃন্দ ও অংশীজন।