উল্লাপাড়ায় পুনঃ খনন হচ্ছে বিলসুর্য্য নদী

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় বিলসূর্য্য (কচুয়া) নদী পুনঃ খননের কাজ চলছে। এ নদীর হারানো যৌবন ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) এর বাস্তবায়ন করছে। এ নদী পুনঃ খননে শুকনো মৌসুমে নদীতে পানি থাকা, মুক্ত জলাশয়ে দেশী মাছের অভয়াশ্রম গড়ে উঠবে। কৃষি খাতে জমিতে পানি সেচ সুবিধা বাড়বে। উল্লাপাড়া উপজেলা সদরের পূর্ব পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ফুলজোড় নদীর শাখা বিলসুর্য্য নদী এক সময় চলমান ছিল। বছরের সব সময় পানি থাকতো। নদীতে মিলতো দেশীয় জাতের মাছ। কৃষিতে উপকারী নদী হয়েছিল। উপজেলা সদরের সাথে পশ্চিমাঞ্চলের ৫টি ইউনিয়নের মুল নদী পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল। ইউনিয়ন গুলো হলো-মোহনপুর, বড়পাঙ্গাসী, কয়ড়া, উধুনিয়া ও বাঙ্গালা। কালের কবলে নদীটি তলদেশ ভরাটে গভীরতা কমে যায়। বর্ষা মৌসুম বাদে বছরের বাকী সময় প্রায় পানি শুন্য হয়ে থাকে। তিন যুগেরও বেশি সময় হলো নদীটি এমন অবস্থা ছিল। সিরাজগঞ্জ পাউবো থেকে বিলসুর্য্য নদীটি পুনঃ খনন পরিকল্পনা এবং তার বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এনায়েতপুর হেলিপ্যাড থেকে রতন দিয়ার ত্রিমোহনী পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১৩ কিলোমিটার নদী পুনঃ খনন কাজ শুরু করা হয়েছে। এর পিছনে বরাদ্দ হয়েছে প্রায় ৯ কোটি টাকা বলে জানা যায়। ঢাকার তাজ লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পুনঃ খনন কাজ করছে। বৃহস্পতিবার বারইয়া পালপাড়া এলাকায় নদীর পুনঃ খননের কাজ সরেজমিনে করতে দেখা গেছে। সেখানে বহু সংখ্যক এসকেভেটরে (ভেকু মেশিন) নদীটি পুনঃ খনন করা হচ্ছে। নদীর গভীরতা বাড়ানো হচ্ছে। এলাকার অনেকেই জানান, নদীটি পুনঃ খননের মাধ্যমে সব দিক থেকেই সুবিধা হবে। পাউবো’র এসডিই মোঃ মিল্টন হোসেন জানান, নদীর মধ্যে কোন অবৈধ স্থাপনা থাকলে তা যথাযথ প্রশাসনের মাধ্যমে উচ্ছেদ দেয়া হবে। তিনি জানান, নির্ধারিত সময়ে আগামী জুন মাসের মধ্যেই নদীটির পুনঃ খননের কাজ শেষ করে আনা হবে। উপজেলা উদ্ভিদ সংরক্ষন কৃষি কর্মকর্তা মো. আজমল হক জানান, নদীটি পুনঃ খননে দু’পাড়ের প্রায় ৬ হাজার হেক্টর কৃষি জমিতে বিভিন্ন ফসলের আবাদে সেচ সুবিধা বাড়বে।