সুন্দরগঞ্জে বাসতবাড়িতে বেপরোয়া হামলা, ৩ নারীসহ আহত ৫

আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম ইউনিয়নের শান্তিরাম গ্রামের নুরুল ইসলামের বসতবাড়িতে বেপরোয়া হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট, মারপিট করেছে প্রতিপক্ষ। এতে ঐ পরিবারের ৩ নারীসহ আহত হয়েছেন ৫ জন। জানা যায়, উক্ত গ্রামের নুরুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে প্রতিপক্ষ মুনছুর আলীর পুত্র ছকুর উদ্দিন ও নছুর উদ্দিনের পুত্র আজিজল হক দলবল নিয়ে উক্ত অসহায় পরিবারে সশস্ত্র হামলা চালায়। এতে ঐ পরিবারের মনোয়ারা বেগম (৪৫) তার মেয়ে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী মুক্তা আক্তার, মুন্নি বেগম (২৩), ছেলে বকুল মিয়া (১৬) ও পুত্রবধু নাছিমা বেগম (২২) সহ একই পরিবারের ৫ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে মনোয়ারা বেগম আশঙ্কাজনক অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বকুল মিয়া ও তার মা আহত মনোয়ারা বেগম জানান, গত বৃহস্পতিবার (২৪ জানুয়ারী) দিনগত রাতে প্রতিপক্ষের লোকজন অতর্কিতভাবে বসতবাড়িতে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে বাড়ি ঘরের ব্যাপক ভাংচর, লুটপাট করে। তাদের বেপরোয়া মারাপিটে পরিবারের সবাই আহত হই। মনোয়ারা বেগম বলেন, বড় মেয়ে মুন্নিকে বিয়ে দেয়ার পর থেকে জামাইয়ের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। একপর্যায়ে মোটা অঙ্কের টাকা যৌতুক দাবি করে জামাই মেয়ে মুনন্নি বেগমকে আমার রেখে যায়। তখন থেকে মুন্নি বেগম এখানেই আছে। জামাইয়ের নাম নুর আজিজ। সে পার্শ্ববর্তী কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়নের ছয়ঘড়িয়া গ্রামের ইউনুস আলীর পুত্র। প্রতিপক্ষের লোকজন তার জামাইয়ে পক্ষ নিয়ে এ হামলার ঘটনা ঘটায়। মেয়ে মুন্নি বেগমের পারিবারিক ঘটনায় বিজ্ঞ আদালতে একাধিক মামলা রয়েছে। তার মধ্যে একটি মামলায় বিজ্ঞ আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলে জামাই নুর আজিজ ও প্রতিবেশী ছকুর উদ্দিন গং আমার ও আমার পরিবারের প্রতি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এরই সূত্র ধরে ঘটনার রাতে প্রতিপক্ষের লোকজন এ হামলা চালায়। বকুল মিয়া জানান, তিনি নিজে স্থানীয় ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি (প্রথম বর্ষের) ছাত্র। সে ঘটনার সময় ঘরে লেখা-পড়া করছিল। হঠাৎ প্রতিপক্ষের হামলায় শিকার হয়ে এখন অসুস্থ্য। তার বোন মুন্নি বেগমের ঘটনার পূর্বে স্থানীয়ভাবে ২ বার সালিশ-বৈঠকে মিমাংসার নামে আদালতে এফিডেভিট করে মামলা উত্তোলণের চেষ্টা চালায় দুলাভাই নুর আজিজ ও তার লোকজন। কিন্তু প্রকৃত ঘটনার কোন সুরহা না হওয়ায় মামলাগুলো উত্তোলণ করা সম্ভব হয়নি। বসত বাড়িতে হামলার ঘটনায় ১৪ জনকে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করি। এরপর আসামীদের নানান হুমকী-ধামকী অব্যাহত থাকায় এখন বাড়িছাড়া হয়েছি। পুলিশ অভিযোগ তদন্ত করতে যাবার পর থেকে পরিবারের কেউই নিজ বাড়িতে ঢুকতে পারছি না। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মানিক মিয়ার সঙ্গে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোন অন্য কোন ব্যক্তিকে দিয়ে রিসিভ করান তিনি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান। এরপর ৪ নম্বর অভিযুক্ত একরামুল হক হামলার ঘটনা স্বীকার করে জানান, সে সময় তিনি বাজারে ছিলেন।

রাতে বাজার থেকে বাড়ি গিয়ে তিনি ঘটনা বিষয়ে শুনেছেন। প্রতিপক্ষের অভিযোগ তদন্ত করতে যাওয়া থানার এএসআই আব্দুর রহমানের সঙ্গে কয়েকদফা কথা বলার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। এমনকি তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চেয়ে তাঁর ব্যবহৃত মোবাইল ফোণে ক্ষুদেবার্তা পাঠিয়েও তাঁকে পাওয়া যায়নি।