তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকায় চলতি রবি ও খরিপ-১ মৌসুমে সেচ কার্যক্রম শুরু

জয়নাল আবেদীন: দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকায় চলতি রবি ও খরিপ-১ মৌসুমে সেচ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বুধবার থেকে এর অঅনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করে পাউবো কর্তৃগপক্ষ । এর আগে মঙ্গলবার ভিন্নজগৎ এলাকায় সেচের পানি কৃষকের বোরো আবাদের জন্য প্রদানের উদ্ধোধন করেন বাপাউবো‘র উত্তরাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ।তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদীমাতৃক বাংলাদেশের রূপ পুনরায় ফিরিয়ে আনছেন। প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনায় নদী খননের কাজ চলছে। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হবার পর হতে তিস্তা নদীতে বিশেষ করে শুস্ক মৌসুমে কোন সময় পানির ঘাটতি ছিলনা। উজানের প্রবাহে আমরা বিগত সময়ের মতো এবারো কৃষকদের চাহিদা মতো সেচ দিতে পারবো। তিস্তার পানি চ্যুক্তি না হলেও বিগত সময়ের ন্যায় চলমান শুস্ক মৌসুমে নদীতে পানির গড় হিসাব চলছে ৫/৬ হাজার কিউসেক। এই প্রবাহ অব্যাহত থাকলে প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর জমি সেচ পাবে। তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের পানি ব্যবস্থাপনা এসোসিয়েশনের সভাপতি রেজাউল করিম দোদুলের সভাপতিত্বে বক্তব্য প্রদান করেন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হারুন-অর-রশিদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুস সহীদ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুরের মুখ্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম, ঠাকুরগাও সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রকল্পের ৭৮জন গেট অপারেট ও কমান্ড এলাকার কৃষক এবং রংপুর ও নীলফামারীথেকে আসা সাংবাদিকগণ । উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয় উজান হতে তিস্তা নদীর পানির প্রবাহ অত্যান্ত ভাল রয়েছে। ফলে সাড়ে ৭ হাজার সেচ খালের বিপরিতে ৫ হাজার কিউসেক পানি মজুদ রাখা সম্ভব হচ্ছে। সেচ ক্যানেলের পানি খরচ হলে পুনরায় নদী হতে পানি ভরিয়ে দেয়া হবে সেচ খালে। তিস্তা ব্যারাজের কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাফিউল বারী জানান, ২০২০ সালে তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকার ডালিয়া-জলঢাকা-নীলফামারী সদর-কিশোরীগঞ্জ-রংপুরের তারাগঞ্জ-পাগলাপীর-গঙ্গাচড়া ও দিনাজপুরের খানসামা চিরিরবন্দর উপজেলায় চলতি খরিপ-১ মৌসুমী ৩৫ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে সেচ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। তিনি বলেন, ২০১৯ সালের খরিপ-১ (জানুয়ারী টু মার্চ) মৌসুমে সেচ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৯ হাজার ৫০০ হেক্টরে। তবে ওই বছরে সেচ প্রদান করা হয় ৪০ হাজার ৫০০ হেক্টরে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১০ হাজার হেক্টর বেশী ছিল। বর্তমানে তিস্তা নদীতে উজানের পানি যেভাবে পাওয়া যাচ্ছে এতে করে আমরা হয়তো এবার ৫০ হাজার হেক্টরে সেচ প্রদান করতে পারবো। তিনি অঅরো জানান গেল খরিপ-২ মৌসুমে( আমন) তিস্তা কমান্ড এলাকায় ৫৫ হাজার হেক্টর জমি সেচ সুবিধা পেয়েছিল। এদিকে দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের খরিপ-১ মৌসুমে বিশেষ করে বোরো আবাদের জন্য যথা সময়ে সেচ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় কমান্ড এলাকার কৃষকদের মাঝে আনন্দের বন্যা বইতে শুরু করেছে।