উল্লাপাড়া পৌরসভার নেই নিজস্ব কসাইখানা, গরু জবাই হয় মহাসড়কে

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পৌরসভার নিজস্ব কসাইখানা (স্লাটার হাউজ) নেই। প্রায় দু’যুগ ধরে পৌর এলাকার নগরবাড়ী (বিশ্বরোড) মহাসড়কের ধারে খোলা জায়গায় গরু জবাই করা হয়। সেখানকার দুষিত পরিবেশ নিয়ে জনগণের অভিযোগের শেষ নেই। প্রথম শ্রেণীর এ পৌরসভায় কসাইখানা পরিদর্শক নেই। পৌর কর্তৃপক্ষের বক্তব্যে একমাত্র অর্থ বরাদ্দ না হওয়ায় আজও নিজস্ব কসাই খানা নির্মান করা যায়নি। বিগত ১৯৯৪ সালে উল্লাপাড়া পৌরসভা গঠন হয়েছে। এটি এখন প্রথম শ্রেণীর একটি পৌরসভা। পৌর শহরে প্রতিদিনই সকাল বেলা থেকে বেশ রাত অবধি বাজার চলে। এছাড়া সপ্তাহের দু’দিন শুক্রবার ও সোমবার হাট বসে। পৌর বাজারে প্রতি দিন ৫ থেকে ৭টি গরু ও ১০টির বেশী ছাগলের মাংস কেনা বেচা হয় বলে জানা যায়। হাটবারে এর সংখ্যা বেশী হয়। মাংস বিক্রেতারে হিসেবে প্রায় ২২ থেকে ২৫ মণ গরুর মাংস প্রতিদিন বিক্রি হয়। পৌর সভার নিজস্ব কোন কসাই খানা নেই। আর তা না থাকার কারনে মূল বাজার থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দুরে পৌর এলাকার নগরবাড়ী মহাসড়কের ধারে গরু জবাই করা হয়। এখানে জবাই করা গরুর মাংস বাজারে নিয়ে বিক্রয় করা হয়। প্রতিদিন ভোরে গরু জবাই ও মাংস বাজারে নেওয়া হয়। পৌর বাজারে নিয়মিত মাংস বিক্রির দোকানের সংখ্যা ৫টি এবং এর সাথে জড়িতদের সংখ্যা প্রায় ২০ জন। এরা নিজেরাই গরু জবাই করে সে মাংস বাজারে বিক্রয় করে থাকেন। প্রায় দু’যুগ ধরে এভাবেই চলছে। মহাসড়কের পাশে গরু জবাই জায়গায় রক্তসহ বর্জের সবকিছু ফেলে রাখা হয়। এতে সেখানকার পরিবেশ নোংরা হয়ে থাকা ও দূর্গন্ধ ছড়ায়। সেখান দিয়ে সবাইকে বেশ অস্বস্তিতে চলাচল করতে হয়। গত সপ্তাহে মহাসড়কের ধারে গরু জবাই করা জায়গায় সড়ক দূর্ঘটনায় কসাই ওসমান নিহত হয়েছেন। এদিকে ছাগল ভেড়া পৌর বাজারের মধ্যেই জবাই করা হয়। স্থানীয় মাংস বিক্রেতা মোঃ আব্দুল খালেক জানান, তিনি এ পেশায় প্রায় আড়াই যুগ ধরে আছেন। তিনিসহ আরো ক’জন বিভিন্ন হাট থেকে গরু ছাগল কিনে এনে নিজেদের হেফাজতে রাখেন এর পর সেগুলো জবাই করে মাংস বিক্রি করে থাকেন। উল্লাপাড়ায় পৌরসভার নিজস্ব কসাই খানা নেই সে কারনে তারা বাধ্য হয়ে মহাসড়কের ধারে খোলা জায়গায় গরু জবাই করে থাকেন। পৌর কর্তৃপক্ষের বক্তব্যে, নিজস্ব একটি কসাই খানা থাকা দরকার রয়েছে। একটি স্থায়ী কসাইখানার জন্য কমপক্ষে পাঁচ শতক নিজস্ব ভুমিতে বিভিন্ন অবকাঠামো থাকা এবং পরিস্কার পরিছন্নতার জন্য অন্যান্য ব্যবস্থা থাকবে। সেখানে পৌরসভার নিজস্ব কোন ভূমি নেই। এদিকে পৌরসভার একটি কসাইখানা পরিদর্শক ও সহকারী পরিদর্শক দু’টি পদ শুন্য রয়েছে। পৌরসভার স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মোঃ আলী আহাম্মেদ রতন জানান, কসাই খানা পরিদর্শক না থাকায় তিনি একাজে বাড়তি দায়ীত্ব পালন করে থাকেন। তবে তিনি স্বীকার করেন য়েখানে গরু জবাই করা হয় সেখানকার পরিবেশ নোংরা ও দূর্গন্ধ হওয়ায় সাধারণ জনগন বেশ অস্বস্তিতে চলাচল করে থাকেন। পৌর মেয়র এস এম নজরুল ইসলাম জানান, পৌরসভার নিজস্ব কোন ভূমি নেই। যেখানে কসাইখানা নির্মান করা যাবে। এছাড়া প্রয়োজনীয় অর্থের দরকার রয়েছে। বিগত সময়ে বেশ ক’বার নিজস্ব কসাই খানার জন্য ভূমি অধিগ্রহনসহ অন্যান্য খাতে অর্থ বরাদ্দ ও অনুমোদন চেয়ে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে লিখিত ভাবে আবেদন করা হয়েছে। আজও তার কোন বরাদ্দ বা অনুমোদন পাওয়া যায়নি।