স্ক্যানার নেই স্থলবন্দরে, জিজ্ঞাসাবাদে করোনা শনাক্তের চেষ্টা!

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: এখনও দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশনে থার্মাল স্ক্যানার ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার কোনো আধুনিক যন্ত্রপাতি নেই। সতর্কতামূলক পরামর্শ আর প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষাতেই সীমাবদ্ধ কার্যক্রম।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বসানো হয়েছে হেলথ ডেক্স। নেই কোনো চিকিৎসক, আছেন মাত্র দুইজন স্বাস্থ্য সহকারী। আর প্রয়োজনীয় যন্ত্র বলতে মাত্র একটি থার্মোমিটার। জ্বর মাপার পর সর্দি কাশি আছে কিনা জেনে নেয়ার মধ্যেই সীমাবদ্ধ করোনা ভাইরাস শনাক্তের প্রক্রিয়া।
এক যাত্রী বলেন, এখানে কোনো স্ক্যানার নেই। এখানে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে রোগ শনাক্ত করা হয়।
আরেক যাত্রী বলেন, জ্বর, সর্দি, কাঁসি আছে কিনা প্রশ্ন করা হয়, এভাবে তো আর ভাইরাস সনাক্ত করা যায় না। এখানে জরুরি ভিত্তিতে ডিজিটাল স্ক্যানিং মেশিন নিয়ে আসার হোক।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্বাস্থ্য সহকারী নাজমুল হাসান বলেন, আমাদের এখানে ডিজিটার থার্মোমিটার এখনো আসেনি। আসলে সেটা দিয়ে আমরা রোগ শনাক্তের কাজ করবো।
তবে আখাউড়া ইমিগ্রেশন কর্মকর্তার দাবি, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে তৎপর তারা।
আখাউড়া ইমিগ্রেশন অফিসার আব্দুল হামিদ বলেন, তাদের মেডিকেল পরীক্ষার জন্য ডাকি। এবং মেডিকেল পরীক্ষার সম্পূর্ণ হওয়ার পর আমরা ইমিগ্রেশন সম্পূর্ণ করি।
দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পরিবহন শ্রমিকসহ প্রতিদিন দেড় হাজারের বেশি যাত্রী যাতায়াত করছেন। আর করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাত্র একজন স্বাস্থ্যকর্মী দিয়েই চলছে স্বাস্থ্য পরীক্ষা কার্যক্রম। নেই থার্মাল স্ক্যানারের কোনো ব্যবস্থা।

দিনাজপুর হাকিমপুর ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নাজমুস সাঈদ বলেন, এখানে সার্বক্ষণিক মেডিকেল টিম কাজ করছে। প্রাথমিক যে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা দরকার আমার সেটা করছি।
এদিকে, মৌলভীবাজারের চাতলা, ফুলতলা ও কুরমা চেকপোস্টেও নেই কোনো থার্মাল স্ক্যানার। তবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যাত্রীদের নানা পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।