মির্জাগঞ্জে মোটরসাইকেলে যাত্রীসেবা : বেকারদের কর্মসংস্থান

আবদুর রহিম সজল: মির্জাগঞ্জের ৬ টি ইউনিয়নে অটোভ্যান বা রিকশার মতো ভাড়ায় মোটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহন করে নিজের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন বেকার অর্ধহাজার যুবক। উপজেলার পায়রাগঞ্জ ফেরিঘাট ও সুবিদখালী বাজারের স্টানসহ বিভিন্ন স্টানে মোটরসাইকেল নিয়ে রীতিমতো অপেক্ষা করেন চালকরা। তারা মোটরসাইকেলের পিছনে যাত্রী নিয়ে পৌছে দেন নির্দিষ্ট গন্তব্যে। ১৫-২০ বছর যাবত তারা করছেন এই কাজ। মির্জাগঞ্জে প্রায় ৫ শতাধিক মোটরসাইকেল ভাড়ায় চলাচল করে। এখানে অনেকেই মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। ভাড়া মোটরসাইকেল চালিয়ে একজন চালক প্রতিদিন ৬্#৩৯;স থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করেন। তারা বিভিন্ন স্থানে যাত্রীদের জন্য অপেক্ষা করেন। সময় ও দূরত্ব জানার পর ভাড়া ঠিক করা হয়। আবার যাতায়াতে কতটুকু তেল খরচ হবে তার হিসাব কষে ঠিক করা হয় ভাড়া। সাধারণত উপজেলা ও উপজেলার আশেপাশের লোকজনই মোটরসাইকেলে যাত্রী হন। পায়রাগঞ্জ স্টানের মোটরসাইকেল চালক রিপন জানান, দীর্ঘ ৭ বছর যাবত এই পেশায় আছি। এটা আত্মকর্মসংস্থানের মতোই একটি পেশা, নিজের খুশিমতো করা যায়। যাত্রীরা স্বল্প সময়ের মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে তাই যাত্রী ও বেশি, আয় রোজগার ও বেশি।