রংপুরে গণসংবর্ধনায় ভালোবাসার ফুল, শুভেচ্ছা ও আশির্বাদে সিক্ত আকবর

জয়নাল আবেদীন: বেশিনা ১০দিন আগেও যে আকবরকে মানুষ চিনতো না জানতোনা সেই আকবরকে সবাই বলছে আকবর দি গ্রেট । ৪শ বছর আগে ইতিহাসের পাতায় মুঘল সাম্রাজ্যের অধিপতি আকবর নামটি আবারো আলোকিত করলো রংপুরের আকবর। বিশ্ব ক্রিকেট যুবাদের যুদ্ধ মঞ্চে ভারতকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জয় মহা প্রাণের স্বাদ পূর্ণ করেছে রংপুরের আকবরের বাংলাদেশ। মুঘল অধিপতির মতই বাংলার যুবাদের অধিনায়ক আকবরকে সবলছে সবাই ‘আকবর দ্য গ্রেট’। ক্রিকেট ইতিহাসে বাংলাদেশের এই মহানায়ক বড় বোনের মৃত্যুর ১৯ দিনের মাথায় শোককে শক্তিতে পরিণত করে বিশ্বকাপ জযয়র আনন্দে ভাসিয়েছেন গোটা বাংলাদেশকে। তেতুলিয়া থেকে টেকনাফ ক্রিকেটভক্তদের আনন্দের বন্যা বইয়ে দিয়েছে । বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জয়ের হিরো আকবর ফিরেছেন তার গ্রামের বাড়ি রংপুরে। বিশ্বজয়ের পর যে এটাই তার প্রথম নিজ জন্ম জেলায় রংপুর নগরির পশ্চিম জুম্মাপাড়ায়। তাকে বরণ করে নিতে উৎসবের আমেজ বইছে পুরো রংপুরসহ আকবর আলীর নিজ মহল্লায়। বীরোচিত এই তরুণের রঙে রঙিন শুধু আকবরের নিজ বাড়ি নয়, সারা রংপুরেই চলছে আনন্দ মিছিল। আকবর আলীর রংপুরে আগমনে উৎফুল্ল পুরো রংপুরবাসী। বৃহস্পতিবার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওয়ানা দিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টায় সৈয়দপুর বিমানবন্দরে আসেন আকবর । সেখানে তাকে অভ্যর্থনা জানান রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের সুধিজন। পরে সেখান থেকে তাকে কার, মাইক্রো, মোটরবাইকের বিশাল বহরে করে রংপুরে নিয়ে আসা হয়। তার নিজ পাড়ায় ঢোকার পথে নগরীর কৈলাস রঞ্জন স্কুল গেটের সামনে থেকে ফুলেল বিছানো গালিচায় ফুলে ফুলে সিক্ত হয়ে মা-বাবার কোলে গিয়ে পৌঁছান আকবর।সেখান থেকে বিকেলে তাকে আনা হয় সংবর্ধনা মঞ্চে। আতশবাজি, মিউজিক্যাল সাউন্ড শো, আর লাল সবুজের পতাকায় বিকেলের পর পশ্চিম জুম্মাপাড়া হয়ে উঠে বর্ণিল। আকবর আলীকে সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে রংপুরে নেয়ার পথে মোড়ে মোড়ে হাত উচিয়ে ও ফুল ছিটিয়ে সংবর্ধিত করেন রাস্তার দু’পাশে দাড়িয়ে থাকা হাজারো মানুষ। বিকেলের দিকে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত গণসংবর্ধনায় ভালোবাসার ফুল, শুভেচ্ছা ও আশির্বাদে সিক্তকরা হয় আকবরকে। বাংলাদেশ ক্রিকেটের এটাই যেন শেষ সাফল্য না হয়। এই সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। তা হলেই বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জল হবে। সব অবস্থায় দলকে সর্মথন দিতে হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর পাবলিক লাইবের্রি মাঠে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রিড়া সংস্থা আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জয়ের অনুভূতি প্রকাশ এ কথাগুলো বলেন বিশ্ব কাপ জয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলী। যুব বিশ্ব ক্রিকেটে ভারতকে হারিয়ে বিশ্বকাপ এসেছে রংপুরের আকবর আলীর হাত ধরে। সকাল থেকেই আকবর আলীকে বরণ করে নিতে প্রস্তুত ছিল রংপুরবাসি। বিশ্বজয়ের পর যে এটাই তার প্রথম নিজ জেলায় সফর ছিল। তার শৈশবের সোনলী দিনগুলো কেটেছে এই রংপুর শহরের পশ্চিম জুম্মাপাড়ায়। তাকে বরণ করে নিতে উৎসবের আমেজ ভরপুর ছিল পুরো রংপুর। সকাল থেকে কয়েক

শত মটর সাইকেল, মাইক্রোবাস, পিকআপে কয়েক হাজার আকবর প্রেমি সৈয়দপুর বিমান বন্দরে যায়। সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে রংপুরে আসার পথে মোড়ে মোড়ে হাত উচিয়ে ও ফুল ছিটিয়ে আকবরকে সংবর্ধিত করেন রাস্তার দু'পাশে দাড়িয়ে থাকা হাজারো মানুষ। দুপুর সোয়া একটায় নগরীর মেডিকেল মোড়ে এলেও তাকে সরাসরি শহরে না ঢুকিয়ে মর্ডান মোড় হয়ে নগরীর প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে বেলা আড়াইটার দিকে সংবর্ধনার স্থল পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে এসে পৌছেন আকবর আলীর গাড়ির বহর। ব্যন্ডপার্টির সুরেলা বাদ্যের তালে তালে তাকে বরণ করে নেয়া হয়। ওই গাড়ি বহরের নেতৃত্ব দেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাফাসহ নগরীর সুধিজন। রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত গণসংবর্ধনায় ভালোবাসার ফুল, শুভেচ্ছায় সিক্ত হয় আকবর। এসময় বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, রংপুরের কৃতি সন্তান আকবরের হাত ধরে যে সম্মান এসেছে এজন্য পুরো দেশবাসি গর্বিত। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এ্যাড আনোয়ারুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আবু সুফিয়ান, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মারুফ হাসান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, মহা নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডলসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এসময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আকবর আলীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জাননো। পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে গণ সংবর্ধনা শেষে আকবর জুম্মাপাড়াস্থ নিজ বাড়িতে যান। এসময় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সেকেন্দার আলীর নেতৃত্বে সেখানেও শত শত মানুষ তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এসময় সাংবাদিকদের সাথে সংক্ষিপ্ত কথা বলেন আকবর আলী। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আকবর আলী বলেন রংপুরের মানুষ আমাকে এত ভালোবাসা দিবে এটা স্বপ্নেও কল্পনা করিনি। সত্যি এখানকার মানুষের ভালোবাসায় আমি অভিভূত। বিশ্বকাপ জয়ের ১৯ দিন আগে বড় বোনের মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর কি ধরনের অনুভূতি ছিল এমন প্রশ্নের জবাবে আবকর আলী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন আমি এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবোনা। তিনি এসময় জুনিয়র ক্রিকেটার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, অধ্যবসায় ও একাগ্রতা থাকলে সাফল্য আসবে। তিনি জুনিয়র ক্রিকেটার একাগ্রতার সাথে খেলার আহবান জানান। তিনি দলকে সব সময় সমর্থন দেয়ার জন্য ক্রিকেট প্রেমিদের প্রতি অনুরোধ জানান।