কলাপাড়ায় আয়রণব্রীজ এখন মরণফাঁদে পরিণত

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার দুই ইউনিয়নের মাঝ খানে লক্ষ্মীর হাট খালের উপর নির্মিত আয়রণ ব্রিজটি মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। দুর্ভোগে পরেছেন ৬ গ্রামের ১০ হাজার মানুষসহ ৩ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা। জরুলী চিকিৎসা ও ক্ষেতের উৎপাদিত ফসল নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছে ওই এলাকার সাধারন জনগন। স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর ২০০১ সালে লক্ষ্মীর হাট খালের উপর আয়রণ ব্রিজটি নির্মান করেন।প্রতিদিন দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে পথচারীরা। বেশী দুর্ঘটনার শিকার হয় স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র- ছাত্রীরা। আয়রন ব্রিজটি দ্রুত সংস্কার করা না হলে যে কোনো সময় ব্রিজ ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরণের দুর্ঘটনা হতে পারে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার লতাচাপলী ইউনিয়ন ও ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের মাঝ খানে লক্ষ্মীর হাট খালের উপর দিয়ে কুয়াকাটা খানাবাদ ডিগ্রী কলেজ, ঐতিহ্যবাহি মিশ্রীপাড়া ফাতেমা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মিশ্রিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহাস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রী প্রতিদিন স্কুল –- কলেজে যাতায়ত করেন। এ ছাড়া দুই ইউনিয়নের মিস্ত্রিপাড়া, লক্ষীরহাট, পুনামাপাড়া, আথালত পাড়া, বরকতিয়া, নয়ামিস্ত্রি পাড়া উপজেলা সদরের সাথে চলাচলের একমাত্র মাধ্যম এই আয়রন ব্রিজটি দিয়ে ১০ হাজার সাধারন মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পার হতে হচ্ছে। মেরামত না করায় মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। আয়রন ব্রিজটির আর সিসি ¯িপলার ভেঙ্গে যাওয়ায় স্থানীয়রা ব্রিজটি সচল রাখতে কাঠ দিয়ে মেরামত করে চলাচল করছে, রোদ বৃস্টিতে ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে। পথচারীরা প্রতিদিন কোন না কোন দুর্ঘটনার কবলে পরেন। সবচেয়ে বেশী দুর্ঘটনার শিকার হয় স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরা ও বৃদ্ধিরা। ব্রিজটি দ্রুত সংস্কার করা না হলে যে কোনো সময় ব্রিজ ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে। আঃ রশিদ হাওলাদার জানান, নির্মানের পর থেকে আয়রন ব্রিজটি আজ পর্যন্ত কোন মেরামত করা হয়নি। লোকজনের চলাচলে দূর্ভোগ দেখে কাঠের তক্তা দিয়ে স্থানীয়রা মেরামত করেছে। লতাচালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ আনছার উদ্দিন মোল্লা জানান,আয়রন ব্রিজটি দিয়ে চলাচল অনুপযোগি ঘোষণা করা হয়েছে তার পরেও লোকজন ঝুঁিক নিয়ে চলছে। তবে সংস্কারের জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরে যোগাযোগ চলছে। ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম সিকদার জানান, ঝুঁকিপূন আয়রন ব্রিজটি দিয়ে প্রতিদিন স্কুল ,কলেজ ও সাধারন মানুষ যাতায়ত করতে হয়। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ব্রিজটি নিমান করা দরকার না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা হতে পারে। এব্যাপারে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর’র প্রকৌশলী মহর আলী বলেন,বিষয়টি জেনেছি এবং কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টা চলছে।

Previous articleকুড়িগ্রামে সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে ভূঞাপুরে সাংবাদিকদের মানববন্ধন ও সমাবেশ
Next articleঅবশেষে রানুর পুড়ে যাওয়া বাড়ি গড়তে মিলল টিন ও নগদ অনুদান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।