রায়পুরে করোনার মধ্যে অসহায় পরিবারের বসতঘরসহ জমি নিলাম ডেকেছে ইসলামি ব্যাংক

তাবারক হোসেন আজাদ: সরকার ঘোষনা দিয়েছেন প্রানঘাতি ‘করোনা’ চলাকালিন অবস্থায় দেশের কোথাও কোন সংস্থা গ্রাহকদের কাছে লোন ও কিস্তি আদায় করা স্থগিত থাকবে। কিন্তু তার উল্টোটা করছেন ইসলামি ব্যাংক লক্ষ্মীপুরে রায়পুর শাখার ব্যাবস্থাপক। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ গত ১ এপ্রিল সকালে ১২ লাখ টাকা আদায় ও বসতবকড়ী থেকে উচ্ছেদের-লক্ষে আদালতের মামলা চলাকালিন অবস্থায় মোঃ আমিন নামের এক অসহায দিনমজুর পরিবার বসতঘরসহ ৮৪ শতাংশ জমি নিলাম দিতে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছেন। এঘটনায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।।

রোববার দুপুরে উপজেলার চরপাতা ইউপির গাজি নগর গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ দিনমজুর মোঃ আমিন সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেছেন।

মোঃ আমিন জানান, ২০১০ সালে তার ভাই মাদরাসা শিক্ষক ও ডেন্টিস্ট মঃ রুহুল আমিন হাযদরগন্জে দোকানের নামে নীজের, বড় ভাই আমিনের বসতঘরসহ জমি ও মা’র নামে তাদের অগোচরে জমি দেখিয়ে ইসলামি ব্যাংক থেকে ১২ লক্ষ টাকা লোন নেন। এ লোন পরিষোধ করতে ব্যার্থ হওয়ায় রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে লক্ষ্মীপুর আদালতে পৃথক ৪ টি চেকে মামলা করেন ইসলামি ব্যাংক। তার মধ্যে একটি মামলায় আড়াই লাখ টাকার অর্ধেক ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা জমা দিয়ে জামিনে রয়েছেন এবং অন্য ৩টি মামলা বিচারাধিন রয়েছে। নীজের বসতঘর ও জমি উদ্ধারে ২০১৮ সালে লক্ষ্মীপুর আদালতে ছোট ভাই রুহুল আমিন ও ইসলামি ব্যাংক ব্যাবস্থাপকের বিরুদ্ধে-দেওয়ানি মামলা করেন মোঃ আমিন,( যার নং-২২৭/২০১৮ইং।) যা এখনো বিচারাধীন রয়েছে।কিন্তু ব্যংক কর্তৃপক্ষ মামলা চলাকালিন অবস্থায় দেশের ক্রাক্তিকাল অবস্থায় ‘করোনা’র মধ্যেই গত ১ এপ্রিল মোঃ নুরুল আমিনের বাড়ির সামনে বসতবাড়ীসহ ৮৪ শতাংশ জমি নিলামের ডাক দিয়ে সাইনবোড টানিয়ে দেয় এবং ৯ এপ্রিল ড্র দিয়েছে। যা সম্পুর্ণ অনিয়ম ও জবরদস্তি করা হয়। এ নিলামে অংশ নেয়া ৫/৬ ব্যাক্তি গত কয়েকদিন ধরে আমিনের বাড়িতে গিয়ে বসতবাড়ী ও জমি ছেড়ে দিয়ে চলে যাওয়ার জন্য হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। আদালত বন্ধ থাকার সুযোগে এ অবস্থায় আমিন তার পরিবার নিয়ে চরম আতংকিত জীবন যাপন করছেন।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে রায়পুর ইসলামি ব্যাংক শাখা ব্যাবস্থাপক মোজাহিদুল ইসলামের ফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।।