চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগে ইউপি সদস্যদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের সরকারি খাদ্য সহায়তা বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্থানীয়রা।

এ সময় এই কর্মসূচির প্রতিবাদে সমাবেশ করেন সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানও। পাল্টাপাল্টি অবস্থানের কারণে এলাকায় উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ও বাজারে পাল্টাপাল্টি এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডে মেম্বার মনজুর হোসেন, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আতিয়ার রহমানসহ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম টিপু দীর্ঘদিন ধরে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে আসছে। বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের নামে ব্যাপক হারে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন।

এ ইউপি সদস্যরা আরো বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে আসা সরকারি বিভিন্ন সহায়তার কার্ড নিজের লোকদের বণ্টন ও নিজের কাছে কার্ড রেখে সেই সহায়তার চাল আত্মাসাৎ করছেন। এসব বিষয় নিয়ে চেয়ারম্যানকে বলা হলে তিনি তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে নানাভাবে হুমকি দেন। আমাদের কোনো তালিকা তিনি গ্রহণ করেননি।

চেয়ারম্যানের দুর্নীতির প্রতিবাদে বুধবার স্থানীয় নওপাড়া বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেন কয়েকজন ইউপি সদস্যদের নেতৃত্বে স্থানীয় কয়েক শ জনতা। এ সময় তারা চেয়ারম্যানের নানা দুর্নীতির ফিরিস্তি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন এবং চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবি করেন।

ইউপি মেম্বারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে একই সময়ে নওপাড়া ইউপি কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন চেয়ারম্যার জাহিদুল ইসলাম ও তার অনুসারীরা। সমাবেশ থেকে কয়েকজন মেম্বারের নাম উল্লেখ করে তাদের ইউনিয়ন পরিষদ থেকে হঠানোর ঘোষণা দেওয়া হয়।

চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম জানান, কতিপয় মেম্বার তার কাছে বিভিন্ন সময় অনৈতিক সুবিধা চান। তিনি সেই সুবিধা না দেওয়ার কারণে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে নামেন মেম্বাররা।

কয়েক শ গজ দুরে পাল্টাপাল্টি এ সমাবেশ চলাকালে চেয়ারম্যানের সমর্থকেরা মিছিল নিয়ে মেম্বারদের সমাবেশের সামনে গেলে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। যদিও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

এ বিষয়ে মধুখালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোস্তফা মনোয়ার জানান, বিষয়টি আমি উক্ত ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসারের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। যত দ্রুত সম্ভব ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।