বাউফলে ত্রাণের তালিকা নিয়ে দুই ইউপি সদস্যকে হেনস্থার অভিযোগ আ.লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে

অতুল পাল: বাউফলে ত্রাণের তালিকা প্রস্তুত করাকে কেন্দ্র করে এক ইউপি সদস্যের কান ধরে ওঠবস করানো এবং অপর এক সদস্যকে খুঁজে না পেয়ে বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। ভূক্তভোগি ওই ইউপি সদস্যবৃন্দ সাংবাদিকদের কাছে এমনই অভিযোগ করেছেন। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের বাজেমহল গ্রামে এক মহিলা মেম্বরের ঘরে এঘটনা ঘটেছে। অভিযোগকারী কেশবপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের সদস্য ফোরকান আকন জানান, শুক্রবার (৮ মে) দুপুর সারে ১২ টার দিকে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ছিয়ানুর হাওলাদার রনি, ইউনিয়ন ছাত্র লীগের সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক সিকদার, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক ইউপি সদস্য সুজনসহ ৪/৫ জনের একটি দল আমার বাড়িতে গিয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেশবপুর কলেজের অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ পিকু ত্রাণের বিষয়ে কথা বলবেন বলে ইউনিয়ন পরিষদে যেতে বলেন। সাথে সাথে আমি তাদের সাথে ইউনিয়ন পরিষদে গেলে তারা আমাকে ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন মহিলা ইউপি সদস্য লিপি বেগমের ঘরে নিয়ে যান। ওই সময় সেখানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি বশার খান, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম সহ আরো দু’একজন ছিলেন। সেখানে ৭ নং ওয়ার্ডের তালিকায় দলীয়ভাবে অর্ধেক নাম দিতে হবে বলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও যুবলীগের সভাপতি আমাকে নির্দেশ দেন। আমি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা করে তালিকা প্রস্তুত করেছি বলে জানালে তালিকা ঠিক হয়নি বলেই তারা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকে। আমি প্রতিবাদ করলে যুবলীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম আমাকে শারীরিকভাবে হেনস্থা করে এবং এক পর্যায়ে আমাকে কান ধরে ওঠবস করায়। এরপরে তারা জোর করে আমার সঙ্গে থাকা তালিকা রেখে দিয়ে আমাকে ঘর থেকে বের করে দেয়। যার ঘরে ওই ঘটনা ঘটেছে সেই মহিলা ইউপি সদস্য লিপি আক্তার বলেন, আমি পিছনে ছিলাম, কথা কাটাকাটির শব্দ শুনেছি। অপরদিকে ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইব্রাহিম জানান, যুবলীগ সভাপতি জহিরের নেতৃত্বে ১০/১১ টি মটর সাইকেল আমার বাড়িতে গিয়ে আমাকে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে আমার স্ত্রী সন্তানদের সামনে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং তাদের কথা মোতাবেক তালিকা না করলে খবর আছে বলে হুমকি দিয়ে আসে। এবিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ পিকু এবং যুবলীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম বলেন, এধরণের কোন ঘটনাই ঘটেনি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং বানোয়াট। তবে তালিকায় আমাদের সুপারিশ বিবেচনা করার কথা বলেছি। ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ছিয়ানুর হাওলাদার রনি জানান, কথা কাটকাটি ও ঠেলাঠেলি হয়েছে। তবে কান ধরে ওঠবসের ঘটনা ঘটেনি। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন খান লাভলু জানান, দুই ইউপি সদস্যই তাদের সাথে যে আচরণ করা হয়েছে সেটা আমাকে বলেছেন। এমন ঘটনা অনভিপ্রেত এবং দু:খজনক। দলীয় উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।