কলাপাড়ায় ক্ষতিগ্রস্থ বাধঁটি সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধূলাসার ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের চড় ধূলাসার গ্রামের বেড়িবাধঁটি যে কোনে মুহূর্তে ভেঙে চারটি ইউনিয়নের ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। এখন আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ অবস্থায় রয়েছে বেড়িবাঁধটি। গত বছরের শেষ দিকে সিমেন্ট ও বালুসহ জিও ব্যাগ দিয়ে বাধঁটি সংষ্কারের কাজ করলেও আমফানের তান্ডবের কারনে বেড়িবাধঁটি এখন ঝুঁকির মুখে পরেছে। নিম্নমানের কাজ করার কারণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দায়ী করছেন ওই বেড়িবাঁধের পাশে থাকা এলাকাবাসী। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়,সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় আমফানে কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে চড় ধূলাসার গ্রামের এই বেড়িবাধঁটি। সামনের বর্ষ মৌসুমে এ বাঁধটি বিলীন হয়ে যেতে পারে বলে এলাকাবাসী আশংকা করছে। এতে ধূলাসার ইউনিয়ন সহ পার্শ্ববর্তী বালিয়াতলী, লতাচাপলী ও ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন সাগরের পানিতে তলিয়ে ফসলের ব্যাপক ক্ষতিসহ ঘড়-বাড়ি ডুবে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আশিংক ক্ষতিগ্রস্থ অবস্থায় এ বাধঁটি সংষ্কার এখন সময়ের দাবী হয়ে দাঁড়িয়েছে। ধূলাসার ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মো. নেছার উদ্দিন জানান, বেড়িবাধঁটি এখন যে অবস্থায় রয়েছে তাতে পরবর্তী যে কোন ঘূর্ণিঝড়ে পুরোপুরি বিধ্বস্ত হতে পারে। তাই আগে থেকে সংষ্কারের পদক্ষেপ না নিলে কয়েকটি ইিউনিয়ন সাগরের পানিতে তলিয়ে যেতে পারে। তিনি এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন। ধূলাসার ইউপি চেয়ারম্যান মো. জলিল মাষ্টার বলেন, ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবে বাধঁটি এখন অত্যান্ত ঝুঁকির মুখে রয়েছে। এটি সংষ্কারের জন্য আমি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবহিত করেছি। এবিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কলাপাড়া উপজেলা প্রকৌশলী মো. ওয়ালীউল্লাহ বলেন, রেড়ীবাধঁটি ক্ষতিগ্রস্থের বিষয়ে আমফানের পরের দিনই পটুয়াখালী-৪ আসনের এমপি মহোদয় আমাকে জানিয়েছেন। বেড়িবাধঁটি ব্লু-গোল্ড এর একটি প্রকল্প হওয়ায় ব্লু-গোল্ড কর্তৃপক্ষকে আমরা বিষয়টি অবহিত করেছি। তারা অর্থায়ন করলেই বাধঁটি সংষ্কারের কাজ শুরু করা হবে।

Previous articleসাহারা খাতুনের লাশ আসছে রাতেই, দাফন শনিবার
Next articleভূঞাপুরে জাতীয় ফল কাঁঠালের বাজার মন্দা 
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।