রায়পুরে স্ত্রী'র দা ও ইটের আঘাতে স্বামী হাসপাতালে

তাবারক হোসেন আজাদ: ভরন পোষন না দেয়া ও অসুস্থ্য সন্তানদের খোঁজ খবর না নেওয়ায় ক্ষুদ্ধ স্ত্রী’র হামলার শিকার হয়ে হাসপাতালে কোরানের হাফেজ স্বামী মোঃ কামাল হোসেন। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকালে (২৭ আগষ্ট) লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরের টিএনটি অফিস সংলগ্ন মোহাম্মদিয়া হাফেজিয়া মাদরাসার সামনে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও জখমকৃত কামালকে হাসপাতালে খোঁজখবর নিয়েছেন। এরিপোট লেখা পর্যন্ত অভিযুক্ত কোন ব্যাক্তি আটক ও মামলা করাও হয়নি। আহত হাফেজ কামাল হোসেন ওই মাদরাসার শিক্ষক ও কেরোয়া ইউপির লুধুয়া গ্রামের পাঁচকড়ি মিজি বাড়ীর মৃত হাফেজ শহীদ উল্লার ছেলে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত কামাল জানান, প্রায় ১৮ বছর আগে বামনী ইউপির সাইচা গ্রামের লেদু মিয়ার মেয়ে আরজু বেগমকে বিয়ে করেন। তাদে সংসারে দুই ছেলে ও েক মেয়ে রয়েছে। তারা বর্তমানে সোনাপুর ইউপির বাসাবাড়ী বাজারের পাশে দাই বাড়ীতে একটি পাকা বাড়ী কিনে বসবাস করছিলেন। তার অনুপুস্থিতে বিভিন্ন পুরুষের সাথে আরজুর পরকিয়ায় লিপ্ত রয়েছে। এসব খারাফ কাজ না করার জন্য আরজুকে একাধিকবার নিষেধ করলে সে মানুষিক ও শারিরিকভাবে নির্যাতন করতো। অবশেষে প্রায় দুই বছর আগে আদালতের মাধ্যমে তালাক প্রদান করা হয়েছে। তারপরও সে বিভিন্ন লোকদের দিয়ে ক্ষতি করা সেষ্টা করে আসছিলো। এ আতংকে বাড়ী ছেড়ে কয়েকমাস এই মাদরাসায় রাত যাপন করছি। আজকে বৃহস্পতিবা বিকালে মাদরাসার সামনে দাড়িয়ে থাকাবস্তায় আরজু তিনজন লোক নিয়ে আকষ্মিক পেছন থেকে ঝাপটে ধরে ইট ও দা দিয়ে হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়। পরে রক্তাক্ত বস্তায় স্থানীয় লোকজন হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এঘটনায় অভিযুক্ত আরজু বেগম বলেন, বিয়ের কয়েক বছর পর থেকে তার স্বামী-কামাল হোসেন বিভিন্ন খারাফ মন্তব্য করে শারিরীক ও মানুষিক নির্যাতন করে আসছে। বাবার বাড়ী থেকে নগদ তিন লাখ টাকা ও স্বর্ণালংকার বিক্রি করে একটি বাড়ী কিনেছি। তাও আমার নামে না নিয়ে নীজের নামে রেজিষ্ট্রি-করে নেয়। আমার অধিকার ও পাওনা না দিয়ে এবং সামাজিকভাবে সালিশ না করে গোপনে আদালতের মাধ্যমে আমাকে তালাক দেয়। ইউপি চেয়ারম্যান সহ কারো কাছেই বিচার তো পাইনি বরং তারাই কু-প্রস্তাব দিয়ে ফিরিয়ে দিয়েছে। এই করোনার সময়ে গত পাঁচ মাস অসুস্থ সন্তানদের নিয়ে-না খেয়ে অসহায় জীবন যাপন করছি। অসুহ্য হয়ে স্বামী কামালের কাছে ক্ষমা চাইতে গিয়ে তার দ্বারা হামলা শিকার হতে গিয়ে পাল্টা জবাব দিয়েছি।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, স্ত্রীর দ্বারা হাফেজ স্বামীর হামলার খবর পেয়েই হাসপাতালে গিয়ে খবর নেয়া হয়েছে। মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleএবারের বন্যায় ২৫১ জনের প্রাণহানি
Next articleসাত মাস বেতন-ভাতা না পেয়ে পাবনা চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবন-যাপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।