সাত মাস বেতন-ভাতা না পেয়ে পাবনা চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবন

স্বপন কুমার কুন্ডু: প্রায় সাত মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না পাবনা চিনিকলের ৬৭৯ জন শ্রমিক-কর্মচারী। করোনাকালে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীরা। শ্রমিক-কর্মচারীরা পাওনা টাকা পরিশোধের জন্য বার বার বিক্ষোভ -সমাবেশ করলেও কর্তৃপক্ষ কর্ণপাত করছেন না। সর্বশেষ গত ২৬ আগষ্ঠ বুধবার বিকেলেও মিলগেটে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত করেছে শ্রমিক-কর্মচারীরা। শত শত শ্রমিক বেতন প্রদানের এক দফা দাবিতে তুলে শ্লোগাণ দিয়ে ২ ঘন্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে। এসময় সাত দিনের মধ্যে বেতন প্রদান না করা হলে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে আলটিমেটামও দেয়া হয়েছে। এরপরও কর্তৃপক্ষ বেতন-ভাতা দিতে পারবেন কিনা এবিষয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।
বর্তমানে চিনিকলটির শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন-ভাতার পরিমাণ প্রায় ৭ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। পরিবার-পরিজন ও স্বজন নিয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন তারা। আখচাষী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনসার আলী ডিলু জানান, আখের দাম বাবদ আখচাষীদের পাওনা ২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। আখচাষীরাও টাকা পেতে বারংবার মিলগেটে ধরনা দিলেও কর্তৃপক্ষ টাকা দিতে পারেননি।
চিনি কলের সিবিএ সভাপতি সাজেদুল ইসলাম শাহীন ও সাধারন সম্পাদক উজ্জল হোসেন সরদার জানান, করোনাকালীন দুর্যোগের কারণে আখ চাষী থেকে মিলের শ্রমিক-কর্মচারী সংকটে আছেন। সরকারি সব প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক-কর্মচারীরা ২০১৫ সালের মজুরি কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী বাড়তি বেতন-ভাতা পেয়েছেন। কিন্তু পাবনা চিনিকলে সেই সুপারিশ এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। কর্তৃপ আর্থিক সংকটের কথা বলে তাদেরকে সর্বশেষ মজুরি কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী বেতন-ভাতা দিচ্ছে না। এবাবদ শ্রমিক-কর্মচারীদের আরও ৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে।
জানা গেছে, পাবনা চিনিকলে নিয়মিত শ্রমিক ৩৭৯ জন, মৌসুমি ২৪৯ জন, কর্মকর্তা-কর্মচারী ৩৪ জন এবং চুক্তিভিত্তিক ৩৫ জন শ্রমিক রয়েছেন। মিলের কাছে তাদেরও পাওনার পরিমাণ প্রায় ৪০ লাখ টাকা। বকেয়া বেতন-ভাতা না পেয়ে চুক্তিভিত্তিক শ্রমিকরাও পরিবার নিয়ে চরম সংকটাপন্ন পরিস্থিতির মধ্যে দিন অতিবাহিত করছেন। চুক্তিভিত্তিক শ্রমিকরা কিছু বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য মিলের কর্মকর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।
অব্যবস্থাপনার কারণে সরকারি এ চিনিকলটি কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে লোকসান করে আসছে। এখন পর্যন্ত লোকসানের পরিমাণ ৬’শ কোটি টাকার বেশি। এরসাথে রয়েছে শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন-ভাতা। কর্তৃপক্ষ মিল চালাতে বছর বছর সরকারি ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ নিয়ে রেখেছে। বছরে ঋণের সুদ দিতে হচ্ছে প্রায় ৭০/৮০ কোটি টাকার মতো। ফলে চিনিকলের আর্থিক ব্যবস্থাপনা ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম হয়েছে। গত মৌসুমে উৎপাদিত ২ হাজার ১০ টন চিনি বিক্রি হয়েছে। চার হাজার টন চিনি এখনও অবিক্রিত অবস্থায় গুদামে রয়েছে। ৬০ টাকা কেজি দরে যার আনুমানিক মুল্য প্রায় ২৪ কোটি টাকা।
শ্রমিক-কর্মচারীরা আরো জানান,গত ঈদুল ফিতরের আগে তারা বকেয়াসহ সব বেতন-ভাতার সাথে বোনাসও আশা করেছিলেন। কিন্তু বকেয়া বেতন তো দূরের কথা চলতি বেতনও দেয়া হয়নি। গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে চলতি মাস পর্যন্ত তাদের বেতন-ভাতা বকেয়া রয়ে গেছে।
এব্যাপারে মহাব্যবস্থাপক (জিএম) প্রশাসন সাইফ উদ্দীন আহমদ বলেন, শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন বকেয়া রয়েছে ঠিকই। কিন্তু আমাদের উৎপাদিত চিনির একটি বিরাট অংশও অবিক্রিত অবস্থায় গুদামে পড়ে আছে। যার মূল্য ২৪ কোটি টাকা। চিনি বিক্রি করতে পারলে তাদের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ করা সম্ভব হবে