হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী ভেসাল জাল

তাবারক হোসেন আজাদ: জীবনের নতুন প্রজন্ম বিভিন্ন ধরনের নৌকা ও জালের নামও হারিয়ে যাচ্ছে কালের গর্ভে। যেমন হারাচ্ছে অনেক প্রজাতির ছোট মাছ। মাছ ধরার ভেসাল গ্রাম বাংলার এক অতি চেনা নাম। মাছ শিকারে খুবই জনপ্রিয় এ জালের ছবি গ্রামবাংলার পথে প্রান্তরে খাল, বিল, নদী, নালায় দেখা যায়। মাছ ধরার ভেসাল বেয়াল জাল নামেও পরিচিত। এটি এমন একটি মাছ ধরার পদ্ধতি, যা পানির একটি নির্দিষ্ট গভীরতা পর্যন্ত ডুবিয়ে দেওয়া হয়। তারপর মাছ প্রবেশ করলে উত্তোলন করে মাছ ধরা হয়। সম্প্রতি অতিবর্ষন ও অতি জোয়ারের পানিতে মানুষের মাছের ঘের ডুবে ভেসে যায়। মেঘনা উপকূলীয় অঞ্চল লক্ষ্মীপুরের রায়পুরসহ পাঁচ উপজেলায় ডাকাতিয়া নদীর সংযোগ খালগুলোতে ভেসাল জাল দিয়ে মাছ ধরার ধুম পড়েছে। এতে হারিয়ে যাওয়া ছোট মাছ কিনতে গ্রামের ধনি-গরিব মানুষগুলো উপচে পড়ছে। ভেসাল জালগুলো অনেক সমতল বা থলে আকৃতির, আয়তক্ষেত্র, পিরামিড বা শঙ্কুর মতো হতে পারে। এ জাল জেলে তার হাত দিয়ে পরিচালনা করে। এটি কখনো নির্দিষ্টস্থানে বসিয়ে কিংবা নৌকা দিয়েও পরিচালনা করা যায়। ভেসাল জাল কখনো কখনো ্#৩৯;গভীর জাল্#৩৯; নামেও পরিচিত হয়, যদিও এ শব্দটি হাত জাল বলেও ডাকা হয়। ভেসাল জাল বানাতে বাঁশ ও জাল তৈরির উপযোগী শক্ত সুতা ব্যবহৃত হয়। সাধারণত ত্রিভুজাকৃতির একটি লম্বা বাঁশের ফ্রেম থাকে। এ ফ্রেম জুড়ে জাল সংযুক্ত করা হয়। প্রাথমিকভাবে ছোট মাছ ধরতে এর ব্যবহার হয়ে থাকে। এটির এক পাশ পানির তলদেশে ডুবে যায়, অপর পাশ জেলের হাতে থাকে। দেশের উপকূলীয় এলাকা, ছোট নদী ও খালে এর ব্যবহার বেশি দেখা যায়। জেলে একটি মাচা তৈরি করে সেখান থেকে নিজেকে নিরাপদ স্থান দাঁড় করিয়ে এ জালটি মাছ ধরার কাজে পরিচালনা করেন। নৌকা চালিত ভেসাল জাল বা বিভিন্ন জলবাহী জাহাজ থেকে পরিচালিত ভেসাল জাল রয়েছে। এসব নৌযানে কখনো কখনো হাত দ্বারা বা যন্ত্র দ্বারা জালকে উঁচু করে পানি থেকে তোলা হয় আবার পানির গভীরে পাঠানো যায়। নৌকা বা নৌকাতে থাকা কয়েকটি খুঁটির সঙ্গে বেঁধে শক্তভাবে যুক্ত রাখা হয়। এ জাল দিয়ে মাছ ধরতে কখনো কখনো বাতি বা বিভিন্ন কৌশল ব্যবহৃত হয়। যা মাছকে আকৃষ্ট করে এবং জালে নিয়ে আসতে সহায়তা করে। ভেসাল জাল সাধারণত অন্যান্য জালগুলোর চেয়ে কিছুটা বড় আকৃতির হয়।একটি বাঁশ-কাঠের কাঠামোতে স্থায়ীভাবে সংযুক্ত থাকে। জেলে হাত দিয়ে জালটি ব্যবহার করতে পারে এবং মাছ ধরার সময় গুটিয়ে নিয়ে মাছ তার থলেতে রাখতে পারে। রায়পুর সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন, ্#৩৯;ভেসাল জাল্#৩৯; গ্রামের মানুষের কাছে ্#৩৯;বেয়াল জাল্#৩৯; নামেই পরিচিত। সাধারনত বর্ষাকালেই এর দেখা মেলে। সম্প্রতি মেঘনার অতি

জোয়ার ও টানা বর্ষনে মানুষের ঘরবাড়ি ডুবে যাওয়ার সাথে মাছের ঘেরগুলো ডুবে যায়। এসুযোগে জেলেরা বিভিন্ন খালে ও নালায় ভেসাল জাল দিয়ে উৎসব নিয়ে প্রচুর মাছ ধরছে।