সাঁথিয়ায় প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে ইমাম নিরুদ্দেশ

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার বসবাসরত ইমাম জাকারিয়া বিয়ের নেশায় আসক্ত। ১৪ বছরের সাজা মাথায় নিয়ে বিয়ের প্রলোভনে প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে পঞ্চমবারের মত ঘর ছেড়েছেন গোপালপুর মসজিদের ইমাম জাকরিয়া। নিরুদ্দেশ হওয়ার ২০দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ এখনও তাদের উদ্ধার করতে পারেনি। অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, সিরাজগঞ্জের শাহাজাদপুর উপজেলার খামার সানিলা গ্রামের বাসিন্দা ও সাঁথিয়ার কাশিনাথপুর আঃ লতিফ উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষক খালেক মাওলানার ছেলে জাকারিয়া (৩৫)কাশীনাথপুর ইউনিয়নের গোপালপুর আত্রাইশুকা মসজিদের ইমামের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। সে বিভিন্ন সময়ে মসজিদের পাশ্ববর্তী মৃত ইয়াদ আলীর মেয়ে ও সৌদী প্রবাসীর স্ত্রী ও ১ সন্তানের জননীকে প্রেমের দিয়ে আসছিলেন। ১৯ সেপ্টেম্বর সকালে ইমাম জাকারিয়া বিয়ের প্রলোভনে স্বণালংকার ও নগদ প্রায় ৫ লক্ষাধীক টাকাসহ প্রবাসীর স্ত্রী নাছিমা (৩০) কে নিয়ে পঞ্চমবারের মত নিরুদেশ হয়। নাছিমার পরিবারের সদস্যরা তাদের অনেক খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে গত ২০ সেপ্টেম্বর তার মামা আঃ মান্নান বাদী হয়ে সাঁথিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। জাকারিয়ার ৪ নম্বর স্ত্রী শারমিন আক্তার সাথী জানান, তার স্বামী তাকেসহ ৪টি বিয়ে করেছিল। তার বিরুদ্ধে রাজশাহীর স্ত্রী চম্পা নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করে। সে মামলায় তার ১৪ বছরের সাজা হয়। ঢাকা হাইকোর্ট থেকে সে জামিনে আছেন। এর আগে সাঁথিয়ার গ্রৌড়িগ্রামের মুক্তি নামে এক স্ত্রী মামলা করলে টাকা দিয়ে তা মিমাংসা করা হয়। সেখানে জাকারিয়ার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। শারমিন আক্তার সাথী জানান, তাকে বিয়ে করার সময় তার বাবার নিকট থেকে জাকারিয়া ৩ লক্ষ টাকা যৌতুক নেন। জাকারিয়া ওইদিন সুজানগর এক মসজিদের ইমামের চাকরীর কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে প্রাবসীর স্তীকে নিয়ে উধাও হন।

সাঁথিয়া থানার এসআই রাশেদুল ইসলাম জানান, ইমামের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি। তার বাড়ি শাহজাদপুর উপজেলায়। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে